ডেস্ক: সকাল থেকেই পাঁচ রাজ্যের নির্বাচনের ফল বেরোতেই ধরাশয়ী হয়েছে পদ্ম শিবির। তেলেঙ্গনা ও মিজোরাম বাদে রাজস্থান,মধ্যপ্রদেশ, ছত্তিশগড়ে এগিয়ে হাত শিবির। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের প্রথম থেকেই অনুমান ছিল রাজস্থানে ভরাডুবি হতে পারে গতবারের বিজয়ী বিজেপি শিবিরের। সেই কথা মতোই ট্রেন্ড এগিয়ে যাচ্ছে কংগ্রেসের দিকে। কিন্তু এর জন্য দায়ী কে? ইতিমধ্যেই গেরুয়া শিবিরে সেই বিষয়ে বিশ্লেষণ শুরু হয়ে গিয়েছে। বিজেপির একাংশ দাবি করছে হারের দায়টা বসুন্ধরা রাজে সিন্ধ্রিয়ার। কিন্তু কেন? তাঁর পিছনে কিছু উল্লেখযোগ্য কারণ উঠে এসেছে। রাজনৈতিক মহলের মতে, বসুন্ধরার মহারানী ব্যক্তিক্তের জন্য বিগত পাঁচ বছরে সাধারণ মানুষের সঙ্গে মিশতে পারেননি তিনি।

পাশাপাশি রাজস্থানে দলিতদের হত্যা, মাফিয়ারাজ, গুণ্ডাদের বাড়বাড়ন্ত বসুন্ধরার ভাবমূর্তীতে কালি ছিটিয়ে দিয়েছে। আর সেই কালির আঁচ পড়েছে পদ্ম শিবিরেও। বেশ কিছুদিন আগে রাজস্থানে স্বচ্ছ ভারতের জন্য ক্লিন সিটি করতে গিয়ে প্রচুর মন্দির ও ধর্মস্থান ভেঙে দিয়েছে। যার জন্য রাজ্য প্রশাসনের উপর সাধারণ মানুষের ক্ষোভ জমা হয়েছে মনে। আর ঠিক এই কারণেও বিজেপির অন্যতম সেনা রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সঙ্ঘ বসুন্ধরা রাজের সরকারের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। এমনকি চলতি বছরে বিধানসভা ভোটে প্রচারে নামতে দেখাও যায়নি আরএসএসকে।

সবচেয়ে বড় মূল কারণ বসুন্ধরার হারের, সেটা হল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ-এর সঙ্গে মতভেদ ও দ্বন্দ প্রকাশ্যে চলে এসেছে। এর সঙ্গেই রয়েছে কৃষকদের আত্মহত্যা, সাধারণ মানুষের উপর রাজপুতানা ঘরানার অত্যাচার, স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় অনুন্নতি, সাধারণ মানুষকে পরিষেবা দিতে ব্যর্থ হয়েছে বসুন্ধরার সরকার। এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। মূলত এই কারণগুলির জন্যই মরুরাজ্যে ধরাশয়ী হতে পারে বিজেপি সরকার। যদিও পুরো ফল আসতে এখনও বাকি আছে। কিন্তু বিশেষজ্ঞমহলের অনুমান রাহুল গান্ধী ম্যাজিক ও সচিন-অশোক জুটি রাজস্থানে সবুজ আবীরের ঝড় সৃষ্টি করতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here