bata

ডেস্ক: পয়লা বৈশাখ, বাঙালির নববর্ষ। শুভ এই দিনে নিজের প্রিয়জনকে নতুন কিছু পোশাক বা কোনও জিনিস কিনে দেওয়ার চল বহুদিনের। কিন্তু বর্তমানে নামজাদা কোনও শপিং মল হোক বা পাড়ার মোড়ের কোনও দোকান, সব জায়গা থেকেই কিছু কেনার পর আলাদাভাবে ক্যারিবাগের জন্য গুনতে হয় অতিরিক্ত কিছু টাকা। শুধু পয়লা বৈশাখ বলে নয়, এই রীতি এখন সারা বছরই। আগে মূলত, বড়সড় কোনও ‘ব্র্যান্ডেড’ দোকানের আউটলেটেই এই ব্যবস্থা ছিল। কিন্তু বর্তমানে প্লাস্টিকের ক্যারিব্যাগে নিষেধাজ্ঞা লাগু হওয়ার পর প্রায় প্রতিটি দোকানেই শুরু হয়েছে এই ব্যবস্থা।

ক্যারিব্যাগ প্রদান করার জন্য এই অতিরিক্ত কিছু টাকা দেওয়াটা এখন প্রায় নিয়মে পরিণত হয়েছে। কিন্তু এই ‘নিয়মের’ জেরেই বিখ্যাত জুতো প্রস্তুতকারক সংস্থা ‘বাটা’কে নয় হাজার টাকা জরিমানা করল ক্রেতা সুরক্ষা দফতর। গত ৫ ফেব্রুয়ারি চণ্ডীগড়ের এক বাটা শোরুম থেকে একজোড়া জুতো কিনেছিলেন দীনেশ প্রসাদ রাতুরি নামক এক ব্যাক্তি। কিন্তু ক্যাশ কাউন্টারে গিয়ে তিনি জানতে পারেন জুতোর দামের পাশাপাশি ক্যারিব্যাগ নেওয়ার জন্য আলাদাভাবে টাকা দিতে হবে তাঁকে। ব্যাপারটি মোটেও ভালোভাবে নেননি তিনি।

 

এরপরেই ক্রেতা সুরক্ষা দফতরে বাটার নামে নালিশ ঠোকেন দীনেশ। কেন আলাদাভাবে বাটার লোগো দেওয়ার ক্যারিব্যাগের জন্য আলাদা টাকা দেবেন তিনি, তা জানতে চান তিনি। বিষয়টি ভালোভাবে নেয়নি ক্রেতা সুরক্ষা দফতরও। এক রায়ে ক্রেতা সুরক্ষা দফতর জানায়, ক্যারিব্যাগ প্রদান করা যেকোনো সংস্থার দায়িত্ব। এর জন্য আলাদা টাকা চাওয়া যাবে না। সেই মতো বাটাকে নয় হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এরমধ্যে দীনেশকে চার হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ বাবদ ও বাকি টাকা রাজ্য ক্রেতা সুরক্ষা দফতরকে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। ক্রেতা সুরক্ষা দফতরের এই রায়ে দেশের অন্যান্য সংস্থাগুলিও সতর্ক হবে বলে মত দফতরের আধিকারিকদের।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here