নিজস্ব প্রতিবেদক, ব্যারাকপুর: এলাকার দাগী ছিনতাইবাজকে ধরে তাকে জেরা করেই পুলিশ জানতে পেরেছিল কোন দোকানে সে ছিনতাই করা সোনার সামগ্রী বিক্রি করে। তারপর সেই দোকানে হানা দিতে গিয়েই দোকান তল্লাশিতে পুলিশকে বাধা দেন ওই দোকানের মালিক তথা স্বর্নব্যবসায়ী। পুলিশ একরকম বাধ্য হয়েই তাকে গ্রেফতার করে। কিন্তু সেই সময় পুলিশকে প্রবল বাধার মুখে পড়তে হয় ওই ব্যবসায়ীকে থানায় নিয়ে যেতে। তারই জেরে সোমবার সকাল থেকে পুলিশি জুলুমের অভিযোগ তুলে শহর জুড়ে ব্যবসা বন্ধের ডাক দিল ব্যবসায়ী সংগঠনগুলি। ঘটনাস্থল উত্তর ২৪ পরগনা জেলার ব্যারাকপুর মহকুমার টিটাগড় পুরসভা এলাকা।

স্থানীয় ব্যাবসায়ী সমিতির অভিযোগ, রবিবার রাতে টিটাগড় বাজারে প্রসিদ্ধ স্বর্নব্যাবসায়ী রাজু সাউয়ের দোকানে চোরাই সোনা লুকানো আছে সেই খবর পেয়ে অভিযান চালাতে এসে ওই দোকান মালিককে ব্যাপক মারধর করে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। ব্যাবসায়ী সমিতির অন্যান্য সদস্যরা পুলিশের কাছে ঘটনার বিষয় জানতে গেলে মারধর করা হয় ব্যাবসায়ী সমিতির সদস্যদেরও। অন্যদিকে টিটাগড় থানার পুলিশ সূত্রের খবর, এম ডি রাজা নামে এক কুখ্যাত ছিনতাইবাজকে সঙ্গে নিয়ে টিটাগড় বাজারের প্রসিদ্ধ স্বর্নব্যাবসায়ী রাজু সাউয়ের সোনার দোকানে অভিযান চালাতে আসে পুলিশ। ছিনতাইবাজ এম ডি রাজাই পুলিশকে নিয়ে যায় রাজু সাউয়ের সোনার দোকানে। এম ডি রাজা পুলিশকে জানায় সে যে সোনার গহনা ছিনতাই করত বা লুঠ করত তা বিক্রী করতে আসতো এই রাজু সাউয়ের সোনার দোকানে। রবিবার রাতে সুনির্দিষ্ট প্রমান সহ রাজু সাউকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বেসরকারি সুত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার রাজু সাউকে গ্রেপ্তার করতে গেলে এলাকার কিছু ব্যাবসায়ী পুলিশকে বাধা দেয় এবং কর্তব্যরত পুলিশকে ধাক্কাধাক্কি করে। তখন পুলিশ তদন্তের স্বার্থে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রাজু সাউকে টেনে গাড়িতে তোলে। ধৃত এমডি রাজা ও রাজু সাউকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। এদিকে স্বর্নব্যাবসায়ী রাজু সাউকে গ্রেপ্তার এবং স্থানীয় ব্যাবসায়ী সমিতির সদস্যদের উপর পুলিশি জুলুম হয়েছে এই অভিযোগ তুলে সোমবার সকাল থেকে টিটাগড়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য ব্যাবসা বন্ধের ডাক দিয়েছে সম্মিলিত ৫ টি ব্যাবসায়ী সমিতি। তার জেরে এদিন টিটাগড় বাজার সহ টিটাগড় শহরাঞ্চলের সমস্ত দোকান, বাজার বন্ধ ছিল।

টিটাগড় সেন্ট্রাল ব্যাবসায়ী সমিতির সভাপতি রবীন্দ্রনাথ সাউয়ের অভিযোগ,’যে পুলিশ কর্মীরা অভিযান চালানোর সময় এলাকার ব্যাবসায়ীদের উপর হামলা করেছে তাদের সাসপেন্ড করতে হবে। তা না হলে প্রয়োজনে অভিযুক্ত হামলাকারী পুলিশ কর্মীদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করা হবে।’ এদিন টিটাগড় শহরে স্থানীয় ব্যাবসায়ীরা পুলিশি জুলুমের প্রতিবাদে মিছিল করে। অভিযুক্ত পুলিশকর্মীদের কাজে অনাস্থা জানিয়ে স্থানীয় ব্যাবসায়ীরা বারাকপুর পুলিশ কমিশনারেট, বারাকপুরের বিধায়ক এবং টিটাগড় পুরসভার চেয়ারম্যানের কাছে স্মারকলিপি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here