ডেস্ক: আকাশপথে নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে পাকিস্তানের মাটিতে ‘এয়ার স্ট্রাইক’ চালানোর জন্য বাহবা কুড়িয়েছে ১২ টি মিরাজ ২০০০ যুদ্ধবিমান। সকলের মুখে এই ড্যাসল্টের মিরাজ বিমানের ভূয়সী প্রশংসা শোনা গিয়েছে। কিন্তু এই সবু কিছুর পিছনে আরও একটি ভারতীয় যুদ্ধবিমানের অবদান কম ছিল না সেটা হল ‘নেত্র’। একা মিরাজ নয় ‘নেত্র’ও সমান ভাবেই এই ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক ২.০’তে নজরদারি চালিয়ে গিয়েছে।

এখন প্রশ্ন ‘নেত্র’ কী? ‘নেত্র’ হল ভারতীয় বায়ুসেনারই একটি বিশেষ নজরদারি বিমান। যার কাজ মূলত শুত্রপক্ষের দিকে নজর রাখা। শুত্রুপক্ষের থেকে পালটা কোনও মিশাইল ছাড়া হলে সেটা ভারতীয় যুদ্ধবিমানের পাইলটদের জানিয়ে দেয়। এছাড়া অপারেশনে অংশ নেওয়া কোন বিমানের পজ়িশন কোথায়, কোন বিমানকে কভার করছে কোন বিমান ইত্যাদির উপর নজরদারি চালায় ‘নেত্র’। একটানা পাঁচ ঘণ্টা উড়তে সক্ষম ‘নেত্র’। পাশাপাশি এয়ার টু এয়ার রিফুয়েলিংও সক্ষম। অর্থাৎ উড়তে উড়তে জ্বালানি ভরতে সক্ষম নেত্র। মঙ্গলবার ভোররাতে যখন মিরাজ ২০০০ যুদ্ধবিমান পাকিস্তানের মাটিতে হামলা চালাচ্ছিল তখন তাদের উপর নজরদারি এবং কোঅর্ডিনেশনের গোটা দায়িত্বে ছিলেন ‘নেত্র’। তবে ‘নেত্র’ পাকিস্তানের বায়ুসীমা কোনোভাবেই অতিক্রম করেনি ভারতের এই নজরদারি বিমান ‘নেত্র’।

প্রসঙ্গত, পুলওয়ামায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর উপর হামলার পর থেকেই অতিসক্রিয় হয়ে ওথে বায়িসেনা। প্রত্যাঘতের জন্য নিজেদের প্রস্তুতিতে কোনওরকম খামতি রাখেনি। তারপরই মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৩ টে নাগাদ বালাকোট, চাকোটি এবং মুজফফরবাদে জইশ-ই-মহম্মদ জঙ্গি গোষ্ঠীর একাধিক জঙ্গি ঘাঁটি এবং কন্ট্রোল রুম ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here