kolkata bengali news

রক্তিমা দাস: উপনির্বাচনে তৃণমূলের কাছে হেরে যাওয়াকে ‘হার’ বলে মানতে নারাজ রাজ্য বিজেপির প্রথম সারির কর্মীরা। তাদের কথায়, পরাজিত হলেও হেরে যাননি তারা। কারণ, এই নির্বাচনে দ্বিতীয় স্থান দখল করেছেন তারা। তাই এই ফলকে বিজেপির হার বলে মানা যায় না। রবিবার এমনভাবেই উপনির্বাচনের ফলাফলকে ব্যাখ্যা করলেন রাজ্য বিজেপির একজন প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তা।

এদিন ওই কর্মকর্তাকে উপনির্বাচনে তাদের হেরে যাওয়ার কারণ জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, হেরে তো জাননি তারা। দ্বিতীয় স্থান দখল করেছেন। এটা অনেকটাই জয়স্বরূপ তাদের কাছে। কারণ, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি প্রধান বিরোধী দল হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠা করতে পারবে, সেটা কখনও ভাবাই যায়নি। কিন্তু, বর্তমানে বিজেপি সেই স্থান দখল করেছে। বর্তমানে নিজেদের আরও সমৃদ্ধ করে তাদের লক্ষ্য এবার একুশের ভোট। তবে ওই কার্যকর্তার মতে শুধু ২০২১-ই নয়, আরও ১০০ বছর বিজেপি তার নিজের মহিমায় বিরাজ করবে বঙ্গে।

অন্যদিকে, ইতিমধ্যেই একুশের ভোট উপলক্ষে রাজ্য সাজতে চলেছে নতুন টিমে। সে ক্ষেত্রে চলতি বছরের ডিসেম্বরেই বড়সড় রদবদল হতে চলেছে বঙ্গ বিজেপিতে। এই টিম সাজাতে মাঠে নামতে চলেছে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। এমনটাই জানা যাচ্ছে রাজ্য বিজেপি সূত্রে।

জানা গিয়েছে, রদবদল হবে সাংগঠনিক স্তরে। ইতিমধ্যেই স্থির হয়ে গিয়েছে সেই নামের তালিকা। যদিও পরে প্রয়োজনে তার ফদল ঘটতে পারে বলে জানা গিয়েছে। রাজ্য বিজেপি সূত্রের খবর, এই রদবদলে চেয়ার বদল হতে পারে মুকুল রায়, স্বপ্নন দাশগুপ্ত সহ রন্তিদেব সেনগুপ্ত এবং বিধান করের। আপতত রাজ্য বিজেপি সভাপতির আসন সুরক্ষিত থাকছে দিলীপ ঘোষের জন্যই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here