মহানগর ওয়েবডেস্ক: হেমতাবাদের বিজেপি নেতা তথা বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের রহস্যমৃত্যুর তদন্তভার সিআইডি-র হাতে সঁপেছে রাজ্য সরকার। তবে স্বাভাবিকভাবেই এতে সন্তুষ্ট নয় গেরুয়া নেতৃত্ব। তাদের দাবি, সিবিআই তদন্ত। রহস্যজনক এই মৃত্যুর ঘটনায় কেন্দ্রীয় সংস্থার হস্তক্ষেপ জানিয়ে এদিন রাজভবনে হাজির হয় গোটা বঙ্গ বিজেপি নেতৃত্ব। ছিলেন বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ সহ রাহুল সিনহা, অর্জুন সিং, রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো সকল প্রথম সারির নেতারা। রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়ের সঙ্গে তারা দেখা করে সিবিআই তদন্তের দাবি জানান।

রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করে একটি চিঠি দেন দিলীপ। যেখানে তিনি ২০১৭ সালে একইভাবে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হওয়া বিজেপি কর্মী পুরুলিয়ার ত্রিলোচন মাহাতো এবং দুলাল কুমারের কথা উল্লেখ করেন। দিলীপ চিঠিতে লিখেছেন, ২০১৭ সাল থেকেই শাসকদল নানাভাবে কমপক্ষে ১০৫ জন বিজেপি কর্মীকে এভাবে খুন করেছে। ফলে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থা সম্পূর্ণরূপে ভেঙে পড়েছে বলে দাবি বিজেপি নেতৃত্বের। রাজ্যের নির্বাচিত প্রতিনিধিরাই যখন সুরক্ষিত থাকতে পারছেন না, তখন সাধারণ মানুষের কী অবস্থা তা তুলে ধরেছেন দিলীপ ঘোষ। দেবেন্দ্রনাথ রায়ের মৃত্যুর তদন্তভার যাতে অবিলম্বে সিবিআই-কে দেওয়া হয় সেই দাবিও করা হয়েছে।

এই মৃত্যুর ঘটনায় যদিও আগেই টুইট করে বিতর্ক বাড়িয়েছেন ধনকড়। তিনি এদিন টুইট করে লেখেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এখনো আসেনি কিন্তু তার আগেই এই ঘটনাকে আত্মহত্যা বলে দেওয়া হচ্ছে, যা সন্দেহজনক। ময়নাতদন্তের ভিডিওগ্রাফি করা হোক এক্সপার্ট দল দিয়ে। সত্যিটা সামনে আসা খুবই জরুরী। তিনি আরো বলেন, উত্তর দিনাজপুরের বিজেপি বিধায়কের মৃত্যুর ঘটনা অনেকগুলো প্রশ্ন তুলে দিয়েছে। এ নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের তরফে এখনো কোনো প্রতিক্রিয়া দেওয়া হয়নি। নিরপেক্ষ তদন্ত করে সত্যিটা সামনে আনা দরকার। এরফলেই রাজনৈতিক হিংসার আসল রূপটা সামনে আসবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here