রণ: ফি বছর গণতন্ত্রের প্রতিষ্ঠার নামে কিছু মানুষের মৃত্যু, আমরা আহা উহু করে লাইক, শেয়ার ও কমেন্ট করি – আবার গ্রহণ লাগে, খাবারে কুলপাতা সাজিয়ে ঘুমোতে যাই..কারণ যারা মরেছে বা আগামী গ্রহণে যারা মরবে তারা কেউই আমাদের সম্পর্কে কেউ হয়না নাকি ! ঠিক, তাহলে কারা আমাদের? গোপনে অন্ধকার ঘরে বসে সব ঠিক হয় যে এবার তাদের টার্গেট কে বা কারা – তারা আমাদের কে?! খবরের কাগজ, টিভি জুড়ে নারকীয় ঘটনা মুখস্থ করে রাতে স্নান সেরে গায়ে পাউডার মেখে ডিনার এ এতদিন ধরে ভাগাড়ের মাংস ! এক্সাইড মোড়ে ধ্বজভঙ্গের বিজ্ঞাপন ! গোটা শহরের কি ধ্বজভঙ্গ নাকি ! হয়তো অভ্যেস, অভ্যেস ! গা সওয়া হয়ে গেছে হয়তো ! আর খারাপ লাগে না আপনাদের গলা কাটা ভিডিও বা ছবি দেখে !
কিন্তু আমাদের যে খারাপ লাগে ! দূর শহর থেকে এসে খেটে খাই; কেউ খুব ভালোবেসে বাড়িতে বসিয়ে খাওয়ায়, থাকতে দেয়, ঘুম পাড়ায় আর বেশ কিছুটা চেষ্টা করে আমাদের গ্রামের মানুষ গুলোর জন্যে কিছু করার ! যারা এই শহরের তারা কেউই ধজভঙ্গের রুগী নয় ! অথচ প্রতিদিন চোখের সামনে ঘটে যাওয়া খারাপ ঘটনা গুলো বাড়ি ফিরে বলে নিজেদের সাবধান করি ! ফলাফল – কত গুলো খেটে খাওয়া মানুষের মৃত্যু ! কত গুলো রাস্তা, ট্রাম, বাস, লোকাল ট্রেন, মেট্রো চলতি মুখ, মোবাইলে মুখ গুঁজে আপডেট হচ্ছে ! অথচ গোটা পৃথিবী জুড়ে নারকীয় উল্লাসে মত্ত মানুষ গুলোর সামনে আমরা ইঁদুরের মতো মরছি ! আপডেট একটাই – আমরা ক’জন মরলাম তার স্ট্যাটিস্টিক ! এই আমরা’টায় কি আমি – আপনি নেই নাকি সবটাই মোবাইলের সাপ-লুডোর গেম ! আমরা কি শুধুই নকল দৈত্যের সামনে আমাদের পূর্ব, উত্তর, বর্তমান পুরুষদের খাদ্য বানাবো যন্ত্রের দাস হয়ে, নাকি ঘুম ভেঙে একবার উঠে দেখবো যে গ্রাম, শহর খালি হতে হতে একাই এই পৃথিবীর ময়দানে দাঁড়িয়ে !
হ্যাঁ, জানি আপনাকে সংসার চালাতে হয় তাই কোনো মানুষকে বিশ্বাস করে আপনি লাইনে দাঁড়ান ! অথচ আপনার রক্তাক্ত শরীরের টুকরো ছিটকে পড়ছে শিশির ঘাসে তাদেরই কারণে ! চুপ করে থাকুন, দেখুন কি হয় ! আমি তো নস্ট্রাডামুস নই, আমার গায়ে আর সইছেও না ! আমাদের সন্তানদের ভবিষ্যৎ কিন্তু খুব খারাপ ! একটু ভেবে দেখবেন ! ওরাই নাকি এই পৃথিবীর ভবিষ্যৎ ! ওরা বাঁচবে তো!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here