ডেস্ক: নারকীয় অত্যাচারের অবসান ঘটল দশদিন পর। পুরীর কোনারক থেকে অবশেষে উদ্ধার হল কলকাতার এক বাঙালি তরুণী। আপাতত সে ভর্তি পুরীর জেলা হাসপাতালে।

পুলিশ সূত্রে খবর, চাকরির টোপ দিয়ে ওই তরুণীকে পুরী নিয়ে এসেছিল তারই পরিচিত এক মহিলা। আসার পর সুভাষ বেহরা নামে এক জনের সঙ্গে তাকে পরিচয় করিয়ে দেয় মহিলা। চিত্র পাল্টে যায় তারপরই। তরুণী জানায়, সুভাষ ও ওই মহিলা জোর করে তাকে দেহ ব্যবসায় নামতে বলে। প্রতিবাদ করলে তাঁকে বন্দি করে রাখা হয় একটি মার্কেট কমপ্লেক্সের ঘরে। সেখানেই দিনের পর দিন সুভাষ-সহ অন্তত ১৫ জন তাঁকে দফায় দফায় গণধর্ষণ করে বলে তরুণীর অভিযোগ।

পুলিশকে ওই তরুণী আরও জানিয়েছে, শুধু সে নয়, তার মতো আরও অনেককে ওই ঘরে আটকে রেখে শারীরিক নির্যাতন চালানো হত। যদিও কমপ্লেক্সের ওই ঘরে তল্লাশি চালিয়ে পুলিশ আর কাউকে খুঁজে পায়নি। তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার হয়েছে ২ জন। এই ঘটনার পরই রাজ্যজুড়ে তল্লাশি অভিযানে নেমে পড়েছে পুলিশের একাধিক দল। উদ্ধার হওয়া বাঙালি তরুণীর বাড়ির লোকজনের সঙ্গেও যোগাযোগ করার চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ। তবে মূল অভিযুক্তকে এখনও গ্রেফতার করতে পারে নি পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here