ডাল লেকে শিকারা তৈরি, এবারও পুজোয় নির্ভয়ে কাশ্মীর যাচ্ছে বাঙালি

0
79
kashmir

তিয়াষা গুপ্ত: স্বপ্নে মোড়া উপত্যকা। প্রকৃতি যেন সৌন্দর্যের পুরো ডালিটা বসিয়ে দিয়েছে এই উপত্যকার আনাচে-কানাচে। যে দিকেই তাকানো যায়, সে দিকেই যেন শিল্পীর তুলিতে আঁকা অসাধারণ ছবি। একদিকে বরফমোড়া পাহাড়, অন্যদিকে সবুজের বুগিয়াল। মাঝেমাঝে ছবির মতো সেঁটে থাকা বাক্স-বাড়ি। পাশ দিয়ে বয়ে চলা বহতা নদীর উচ্ছলতা। রংবেরঙের ফুলের বাগবাগিচা রঙের তুফান তুলেছে। ডাল লেকের শিকারা দিচ্ছে ডাক। তাই এবারও পুজোয় কাশ্মীর যেতে রুকস্যাক তৈরি করে ফেলেছে বাঙালি।

কুণ্ডু স্পেশাল জানাচ্ছে, এবারও পুজোয় কাশ্মীর যাওয়ার উৎসাহের কোনও কমতি নেই। পর্যটকরা এমন কী নিশ্চয়তা পেলেন যে, তারা কাশ্মীর যেতে ভয় পাচ্ছেন না? কুণ্ডু স্পেশালের কর্মী বিশ্বনাথ সিং জানালেন, তাদের সব ট্যুর প্যাকেজে বুকিং পূর্ণ। মানুষ বিপুল উদ্যমে কাশ্মীর যেতে তৈরি। স্থানীয় পুলিশ-প্রশাসন আশ্বস্ত করেছে কাশ্মীরের পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ। এই আশ্বাসে পর্যটকরা এবারও নির্ভরে কাশ্মীর যাচ্ছেন বলে মনে করছেন তিনি। তাদের একটি ট্যুর প্যাকেজের মধ্যে রয়েছে শ্রীনগর-লেহ-কার্গিল। অন্য একটি প্যাকেজ লেহ-কার্গিল। প্রথমটি ১০ দিনের ট্যুর। বুকিং সারা।

জাফরানি রং আকাশ, মায়াময় সবুজের সুড়ঙ্গ, লেক সিটি শ্রীনগর, শিকারায় শিহরণ, বাহারি ফুলের রাজকীয় উদ্যান– বাঙালির ভ্রমণপিপাসু মনকে যে নাড়া দেবে, তা বলাই যায়। বাঙালি পায়ের তলায় সর্ষে। একথা মিথ্যে নয়। তাই পুজোর কাউন্টডাউন শুরু হতেই বাঙালি ব্যাগ গুছিয়ে তৈরি। তৈরি ট্যুর অপারেটররা।
সদ্য কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা লোপ হয়েছে। এর ফলে উপত্যকা বিশেষ মর্যাদা হারিয়েছে। কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল সংসদে পাশ হয়ে রাষ্ট্রপতি সই করার পর আইনে পরিণত হয়েছে। এর ফলে জম্মু, কাশ্মীর ও লাদাখ দু’টি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত হয়েছে। এই আবহে কাশ্মীরের নিরাপত্তা বহুগুণ বাড়ানো হয়েছে। স্থানীয় পুলিশ-প্রশাসন সম্প্রতি দাবি করেছে, কাশ্মীরে কোনও উত্তেজনা নেই। ট্যুর আপারেটররা মনে করছেন, এই আশ্বাসেই ভ্রমণপ্রিয় মানুষ কাশ্মীরে যেতে তৈরি। কোনও অশান্তির আশঙ্কা তাদের মনে নেই।

অন্য একটি ট্রাভেল এজেন্সি ‘ডিসকভারি হলিডে’-ও তাদের সাইটে জম্মু-কাশ্মীরে যাওয়ার ট্যুর প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। কুণ্ডু স্পেশাল পর্যটকদের শ্রীনগরে নিয়ে যাচ্ছে। ফলে পুজোয় ডাল লেকের শিকারার রোমাঞ্চ উপভোগ করতেই পারেন। জলে ভাসমান জীবনযাত্রার এক জলচিত্র, যা ভারতের অন্য কোনও প্রান্তে দেখা যায় না। ডাল লেক শহরের প্রাণভোমরা। মাঝে মধ্যেই ফুলের গুলদস্তা দিয়ে সাজানো শিকারা। ভাসমান রেস্তোরাঁয় কাশ্মীরি কাহাবা, চোঠ, পরোটা, শিক-কাবাবের মৌতাতে মজে যাওয়া। বেগুনি, নীল, হলুদের মখমলি টিউলিপের বিস্তীর্ণ খেত মনে করিয়ে দেয় ‘ইয়ে কাঁহা আ গয়ে হাম’। পুজোয় শহরের ভিড়, রুদ্ধশ্বাস যানবাহনে ওষ্ঠাগত দিন পেরিয়ে ভূস্বর্গে কয়েকটা দিনের মুক্তির জন্য তৈরি বাঙালি পর্যটক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here