মহানগর ওয়েবডেস্ক: সম্প্রতি বিতর্কিত একটি ফেসবুক পোস্ট কেন্দ্র করে হিংসা ছড়ায় বেঙ্গালুরুতে। হিংসার জেরে বহু মানুষ আহত হন। মৃত্যু হয় তিনজনের। এই ঘটনায় নিজের ঘর হারিয়েছেন কংগ্রেসের বিধায়ক অখণ্ড শ্রীনিবাস মূর্তি। তিনি জানেন না তাঁর কী দোষ ছিল। অথচ দাঙ্গাবাজরা ওই ৫০ বছর বয়সী বিধায়কের বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়। পাশাপাশি দু’টি পুলিশ থানাকেও ভস্মীভূত করে দেয় তারা। এই ঘটনার জেরে একেবারেই ভেঙে পড়েছেন কংগ্রেসের ওই বিধায়ক।

নিজের ঘরবাড়ি হারিয়ে এখন অসহায়ভাবে তিনি প্রশ্ন করছেন, ‘ওরা আমার বাড়িতে কেন হামলা করল? আমি জানতে চেয়েছিলাম। আমার ভুলটা কোথায়? আমি যদি কোনও ভুল করেই থাকি তবে তোমরা পুলিশ বা সংবাদ মাধ্যমের কাছে যাও। আমি তো কিছুই করিনি। তা সত্ত্বেও এরকম হামলা মেনে নিতে পারছি না কিছুতেই।’ ঘটনাচক্রে, যেই ফেসবুক পোস্ট ঘিরে বেঙ্গালুরুতে হিংসা ছড়ায় তা বিধায়ক মূর্তির ভাইপো করেছিল বলে অভিযোগ। যা মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য অত্যন্ত অবমাননাকর বলে জানা যায়। সেই থেকেই শুরু হয় হিংসা। তবে বিধায়ক নিজে এই বিষয়ে কিছুই জানতেন না বলে এদিন দাবি করেছেন সংবাদ মাধ্যমের কাছে।

ঘটনা যাই হোক না কেন, হিংসা কখনই তার সমাধান হতে পারে না। এমনটাই মনে করেন কংগ্রেসের ওই বিধায়ক। তিনি বলেছেন, ‘আমার ভাইপো, বোনের ছেলে বা যেই হোক না কেন। যেই এমনটা করে থাকুক সে ভুল করেছে এবং পুলিশ তাকে সাজা দেবে। ওরা আমার ঘরকে কেন সাজা দিল? আমি কী ভুল করেছিলাম? আমার ঘরের বেশিভাগ অংশ আগুনে জ্বলে ছারখার হয়ে গেছে। এটা ঠিক হল না। খুব দুঃখজনক বিষয়।’

যদিও এই ঘটনায় তাঁর পরিবারের কারোর কোনও ক্ষতি হয়নি। বিধায়ক মূর্তি জানিয়েছেন, ‘বাড়ির সকলেই জন্মাষ্টমী উপলক্ষে বাড়িয়ে কাছে একটি মন্দিরে গিয়েছিলেন। সেই সময়ই দাঙ্গাবাজরা হামলা চালায়।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here