ডেস্ক: মেরেকেটে আর একমাস, শুরু হতে চলেছে পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন। খাতায় কলমে এই নির্বাচন পাঁচ রাজ্যে হলেও, নজর থাকছে মূলত তিন রাজ্যে। রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ ও ছত্তিসগড়। কারণ এই তিন রাজ্যের ফলাফলের উপরই নির্ভর করবে অনেক কিছু। ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে হাওয়া কোনদিন বইবে, তার ইঙ্গিত সামান্য হলেও পাওয়া যাবে। তাই হেভিওয়েট নির্বাচনের পূর্বে এখন থেকেই তিন রাজ্যে জমে উঠেছে জুয়ার বাজার।

ফের ফুটবে পদ্ম, নাকি রাহুলের ‘হাত’-কে বেছে নেবেন রাজ্যবাসী? এই প্রশ্নই ঘুরছে গো-বলয়ে। আর নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে, ততোই জমে উঠছে জুয়ার বাজার। সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যম টাইমস অফ ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে প্রকাশ পেয়েছে, কালো বাজারে কংগ্রেস ও বিজেপির মধ্যে চলছে দেদার বেটিং। কে জিতবে, কে হারবে এই নিয়েও চরমে চলছে জুয়াড়িদের সাট্টা। বিজেপি বা কংগ্রেস কেউই নিজেদের প্রার্থী ঘোষণা না করলেও, জুয়াড়িরা ইতিমধ্যেই টাকার খেলা শুরু করে দিয়েছে।

সূত্র মারফৎ জানা যাচ্ছে, নির্বাচনী সাট্টার পাল্লা ভারি রয়েছে বিজেপির দিকেই। গেরুয়া শিবিরের উপরই বাজি ধরছেন সকলে। অন্তত মধ্যপ্রদেশে যা ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে তাতে অনুমান করা যায় চতুর্থবারও বিজেপিই জয়লাভ করতে চলেছে এখানে। শিবরাজ সিং চৌহানের দলের উপর দশ হাজার টাকার বাজি লাগানো হলে যদি বিজেপি জয়লাভ করে, তবে ফেরত পাওয়া যাবে এগারো হাজার টাকা। কংগ্রেসের উপর সাট্টা খেলার প্রবণতা কম কারণ কংগ্রেসের পক্ষে দশ হাজারে পাওয়া যাচ্ছে মাত্র চার হাজার চারশো টাকা।

মধ্যপ্রদেশ ও ছত্তিসগড়ের ছবিটা এই ধরনের হলেও রাজস্থানে একেবারেই অন্য ছবি দেখা মিলছে। বসুন্ধরা রাজে সরকারের বিরুদ্ধে বিরোধিতা এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে যে সেখানে বিজেপির কোনও সম্ভাবনাই দেখছেন না বিশেষজ্ঞরা। অধিকাংশ সংবাদ সংস্থার সমীক্ষাতেই ধরা পড়েছে বিষয়টি। ফলে মরু রাজ্যে চড়া দামে বিকোচ্ছে রাহুলের দলের বাজি। সব মিলিয়ে নির্বাচনের মাসখানেক বাকি থাকলেও নির্বাচনী উত্তেজনা কালো বাজারের মাধ্যমেই শুরু হয়ে গিয়েছে। তবে সাট্টা যারা লাগাচ্ছেন তাদের বেশ কিছু ব্যক্তি সংবাদ মাধ্যমকে জানাচ্ছেন, প্রার্থী ঘোষণা হওয়ার পরই আসনের ভিত্তিতে এই খেলা আরও জমে উঠবে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here