ডেস্ক: এসএসসির অনশন মঞ্চে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্যকে ছেদো কথা বলে কটাক্ষ করলেন বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু। বুধবার বিমান বসু
বলেন, এসএসসি উত্তীর্ণ ভাবী শিক্ষক-শিক্ষিকাদের অনশনের আজ ২৮ দিন। তাদের দাবি ন্যায়সঙ্গত ও যুক্তিপূর্ণ। তাদের দাবিকে বামফ্রন্ট পূর্ণ সমর্থন করছে। তিনি
জানা্ন, বাম ছাত্রযুবরা আগামীকাল বেকারি বিরোধী দিবস পালন করবে।প্রতিবছরই ২৮ মার্চ এই দিবস তারা পালন করে। এবছর এসএসসির অনশন আন্দোলনের
সমর্থনে বেকারি বিরোধী দিবস পা্লন করবে তারা্। আজ মুখ্যমন্ত্রী অনশনমঞ্চে গিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, তিন ছাত্র ও দুই ছাত্রীকে কমিটিতে যুক্ত করা কথা
হবে। এখন নির্বাচন আচরণবিধি রয়েছে।অনশনকারীদের মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, জুন মাসে তাদের সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। বিমান বসুর কটাক্ষ, ছেদো কথা।
কমিশনের দোহাই দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী। যারা অনশনে অংশীদার তাদের তালিকায় নাম আছে, এরা অনেক চিঠিচাপাটি করেছে। নির্বাচন কমিশনের কাছে লিখুন। এসব
উল্লেখ করে কমিশনকে বললে কমিশন আনুমতি দিয়ে দেবে। এর আগে কতগুলি প্রকল্প চালু রাখার বিষয়ে কমিশনে আবেদন জানিয়ে তার আনুমোদন আদায় করেছে
রাজ্য সরকার। ভাবী শিক্ষকদের এই আন্দোলনকে অমানবিক দৃষ্টিতে দেখা গুরুতর অপরাধ। স্কুলে শি্ক্ষকের অভাব আছে। এমন নয় শিক্ষকে শিক্ষকে ছয়লাপ
স্কুলগুলি। বহু স্কুলে শিক্ষক নেই। এসব জানিয়ে কমিশনের কাছে আবেদন করলে অসম্ভব নয়। কারণ, এরা আগে থেকে এমপ্যানেলড। শিক্ষামন্ত্রী বিষয়টি নিয়ে ডিলে
করেছেন। মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচনের দোহাই দিচ্ছেন। চোখের সামনে একজন অজ্ঞান হয়ে গেল। এই বয়সের শিক্ষক শিক্ষিকাদের সঙ্গে এইরকম করা উচিত নয়। মুখ্যমন্ত্রী
কা্শ্মীর সমস্যার সমাধানের জন্য
কাশ্মীর যাবেন, সে সম্পর্কে তার মত কী জানতে চাওয়া হলে বিমান বসু বলেন, আগে মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যে গণতন্ত্র ফেরাক। তারপর কাশ্মীর যাবেন। এরপর ক্ষেপে
ওঠেন বর্ষীয়ান এই বাম নেতা। বলেন, আজ ব্যাঙ্কশাল কোর্টে যেতে হয়েছে মিছিল করার অপরাধে। কেউ বলতে পারবেন না আমরা চোর চোট্টা বদমাশ।আমাদের
কোর্টে যেতে হয়। কেন যেতে হবে? কাশ্মীর সমাধান করতে কাশ্মীর যাচ্ছেন।কাশ্মীর কা কলি হয়ে লাভ নেই। নিজের রাজ্যে গণতন্ত্র নেই। গণতন্ত্র আগে প্রতিষ্ঠা
করুন। গুন্ডাগার্দী বন্ধ করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here