bitter-gould

ডেস্ক: ইন্টারন্যাশনাল ডায়াবিটিস ফেডারেশনের মতে, ভারত ডায়াবিটিসের রাজধানী। ডায়াবিটিসে আক্রান্ত রোগীদের একটা বড় অংশের বাসভূমি এই দেশ।

ডায়াবিটিসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা উত্তরোত্তর বেড়ে যাওয়ার কারণগুলির মধ্যে রয়েছে, শরীরচর্চা না করা এবং অনিয়ন্ত্রিতভাবে উচ্চ ক্যালোরি যুক্ত খাবার খাওয়া। শুধু কি অল্প বয়সীরা? বয়স্করাও সবজি দেখলে মুখ ঘুরিয়ে নেন। আর এই সবজিগুলোর মুধ্যে এক নম্বরে রয়েছে করলা। খুব তেঁতো লাগলেও কিছু করার নেই, করলাই রক্তে ধাবমান শর্করার কাছে প্রাচির হয়ে দাঁড়ায়।

ডায়াবিটিসের ওষুধ হিসেবে করলাকেই সামনে রাখছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা। কিন্ত এর কারণ কী? বিজ্ঞানীরা বলছেন, পলিপেপটাইড পি, ভাইসিন আর চ্যারনটিন নামে তিনটি ঊপাদান এক সঙ্গে মিলিতভাবে রক্তে শর্করার মাত্রা স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। অনেকটা ইনসুলিনের মতো।

কতটা খেতে হবে তাও বলে দিচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। জার্নাল অব এথনোফার্মোকলজির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে প্রতিদিন ২ গ্রাম করে করলা খাদ্য তালিকায় রাখলে টাইপ ২ ডায়াবিটিসকে অনাকটাই নিয়ন্ত্রনে রাোতে। যায়। চিকিৎসকরা তাই বলছেন প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এক কাপ করলার রস খেয়ে ফেলতে।

তবে শুধু শর্করা নিয়ন্ত্রণই নয়, সর্দি-কাশি, পিরিয়ডের সময় যন্ত্রণা উপসমেও উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে করলা। এমন কী স্তনের ক্যানসারের কোষ ধ্বংসেও কার্যকরী করলার রস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here