kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, দমদম: দক্ষিণ দমদম পুরসভার ২২ নম্বর ওয়ার্ডে তেলিপুকুর এলাকায় দীপক দে নামে এক তৃণমূল কর্মী, তার স্ত্রী ও ছেলেকে মারধর করার অভিযোগ উঠল বিজেপি কর্মী জয়ন্ত চৌধুরী ও তার দলবলের বিরুদ্ধে। দীপক দে’র দাবি, তার ছেলে রাহুলকে জোর করে বিজেপি’র মিটিং-মিছিলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তিনি বারণ করায় জয়ন্ত দলবল নিয়ে এসে লোহার রড দিয়ে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেয়। এই ঘটনায় দমদমে আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়। বিজেপি কর্মী জয়ন্ত চৌধুরীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে দমদম থানার পুলিশ। অভিযুক্ত জয়ন্ত চৌধুরীর খোঁজ চলছে।

এই ঘটনার পর থেকে সোমবার দুপুর বেলায় তৃণমূলের বিদায়ী কাউন্সিলর অমিত পোদ্দারের নেতৃত্বে জয়ন্ত’র বাড়ির সামনে এক ঘণ্টা বিক্ষোভ দেখানো হয়। এরপরে অবশেষে দমদম থানার পুলিশ এসে বিজেপি কর্মী জয়ন্ত চৌধুরীর মা এবং কাকাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এবিষয়ে স্থানীয় বিদায়ী কাউন্সিলর অমিত পোদ্দার বলেন, জয়ন্ত চৌধুরী, রাজীব দাস-সহ বেশ কয়েকজন মিলে রড দিয়ে তৃণমূল কর্মী দীপক দে, তার স্ত্রী মালা দে এবং ছেলে রাহুল দে’কে মারধর করেছে। একদিকে করোনা অন্যদিকে বৃষ্টির কারণে ওরা রাস্তা ফাঁকা পেয়ে একতরফা মারধর করে। পুলিশকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেছি। পুলিশ যদি ব্যবস্থা না নেয়, তা হলে আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে নামব।

এই ঘটনায় স্থানীয় বিজেপি নেতা পীযূষ কানোরিয়া বলেন,  পুলিশ তদন্ত করে ব্যাপারটা দেখুক কী ঘটনা ঘটেছে। বিজেপি কোনওদিন মারধরের রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না। যার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তাকে পুলিশ গ্রেফতার করুক। তার বাড়ির লোক কী দোষ করেছে? লকডাউনের সময় তৃণমূল কী করে বিক্ষোভ দেখায় বলে প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here