ডেস্ক: বিধানসভা ভোটের বাজারে সবাইকে ছাপিয়ে বিজ্ঞাপনদাতাদের শীর্ষে উঠে এসেছে বিজেপি। যার ধারে কাছে কোনওভাবেই টেক্কা পাচ্ছে না কংগ্রেস। অথচ একসময় এই কংগ্রেসই একসময় ক্ষমতাসীন দল ছিল। কিন্তু এখন কংগ্রেসের চিহ্নও যে প্রায় মুছতে বসেছে তা বলার অপেক্ষা থাকে না। কিন্তু বিজ্ঞাপনের বাজারে কেন এত পিছিয়ে কংগ্রেস? এই প্রশ্নের উত্তর একটাই, অর্ধশতাব্দী ধরে রাজত্ব করা দলটির অবস্থা এখন ভাঁড়ে মা ভবানী বলাই চলে। কাজেই টেলিভিশনে বিজ্ঞাপন দেওয়ার দৌড়ে এখন সবাইকে পিছনে একাই রাজ করছে ভারতীয় জনতা পার্টি। এমন তথ্যই উঠে এসেছে মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান, তেলেঙ্গানা, রাজস্থান ও মিজোরাম এই পাঁচ রাজ্যের সমীক্ষা রিপোর্ট ‘ব্রডকাস্ট অডিয়েন্স রিসার্চ কাউন্সিল’এ। যেখানে দেখা গিয়েছে, টেলিভিশন চ্যানেলে গত এক সপ্তাহ ধরেই বড় বিজ্ঞাপনদাতাদের মধ্যে প্রথমে রয়েছেন বিজেপি। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে একটি জনপ্রিয় ভিডিয়ো স্ট্রিমিং সংস্থার অ্যাপ, এবং তৃতীয় স্থানে রয়েছে পর্যটনের সঙ্গে যুক্ত একটি নেটওয়ার্ক পরিষেবা সংস্থা।

‘ব্রডকাস্ট অডিয়েন্স রিসার্চ কাউন্সিল’ বা বার্ক এই রিপোর্টে জানা গিয়েছে, গত এক সপ্তাহে সব কটি টিভি চ্যানেলে বিজেপির বিজেপির বিজ্ঞাপন মোট ২২,০৯৯ বার দেখানো হয়েছে। যেখানে দ্বিতীয় স্থানে থাকা ভিডিও স্ট্রিমিং অ্যাপটির বিজ্ঞাপন দেখানো হয়েছে ১২,৯৫১ বার। তবে এর কারণটা ঠিক কী? অনেকেই বলছেন, লোকসভা ভোটের আগে এই বিধানসভা ভোট যেহেতু অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, তাই বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে কোনও কার্পণ্যবোধ করছে না বিজেপি। যেখানে বিজেপি সবার শীর্ষে রাজ করছে সেখানে প্রথম দশের তালিকেতেও নাম নেই কংগ্রেসের। যার ফলে স্বভাবতই একঘরে পরিসস্থিতি হওয়ার জোগাড় কংগ্রেসের। তাই ১৯’এর লোকসভা ভোটের আগেই বিরোধী জোট করতে তৎপর হয়ে উঠেছে কংগ্রেস ও অন্যান্য আঞ্চলিক দলগুলি।

তবে রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন বিশেষজ্ঞদের মতে সাড়ে চার বছর ধরে কেন্দ্রে রাজত্ব করছে বিজেপি। এত দীর্ঘ সময় ধরে ক্ষমতায় থাকার ফলে রাজ্যের ভোটগুলির একটা প্রভাব পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। আর তাই কেন্দ্র এবং রাজ্যে সমস্ত সরকারি প্রকল্পের ঢাক পেটানোটা এখন জরুরি হয়ে দাঁড়িয়েছে শাসক দলের কাছে। বার্ক ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, টেলিভিশন যেহেতু সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছয়, তাই নিত্য ব্যবহার্য পণ্য বা পরিষেবার মতোই রাজনৈতিক প্রচারও এখানে লাভজনক। তাই লোকসভা ভোটের আগে বিজেপি যে বিজ্ঞাপনকেই হাতিয়ার করে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছাবে তা বলাই বাহুল্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here