ডেস্ক: What Bengal thinks today, India thinks tomorrow. উনি বারবারই বলে থাকেন এই কথাটা। উনি, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপির সঙ্গে সম্পর্ক আদায় কাঁচকলায় হলেও, উন্নয়নমূলক কাজ সমাদৃত হয়ই। সেটা কৃতিত্ব কেন্দ্রীয় সরকারও বহুবার দিয়েছে রাজ্যকে, এবার মুখে না বললেও কাগজে কলমে মমতার দেখানো পথই অনুসরণ করলেন কর্ণাটকে বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী প্রার্থী ইয়েদুরাপ্পা।

কর্ণাটক বিধানসভা নির্বাচনের শেষ পর্যায়ে এসে নিজেদের ইস্তেহার প্রকাশ করল বিজেপি বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী প্রার্থী ইয়েদুরাপ্পা এদিন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভেড়কর সহ অন্যান্য নেতাদের উপস্থিতিতে এই ইস্তেহার জারি করেন। বিজেপির এই ইস্তেহারে কৃষকদের জন্য বিশেষ প্যাকেজের ঘোষণা করা হয়েছে। কংগ্রেসের ইস্তেহার থেকে আরও এক-পা এগিয়ে দরিদ্র সীমার নীচে থাকা পরিবারগুলির জন্য স্মার্টফোন এবং ল্যাপটপের প্রতিশ্রুতিও দেওয়া হয়েছে।

ইস্তেহার প্রকাশ করে ইয়েদুরাপ্পা বলেন, ”প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর স্বপ্নপূরণ করে যদি বিজেপি সরকার গঠন করতে পারে তবে কৃষকদের ন্যূনতম দামে সকল সুবিধা দেওয়া হবে। ১,৫০,০০০ কোটি টাকা বিভিন্ন কৃষি ক্ষেত্রে বণ্টন করা হবে। যাতে প্রত্যেক এলাকায় জল পৌঁছায় সেই বিষয়টি নিশ্চিত করবে বিজেপি সরকার।

নিজেদের ইস্তেহারে মোবাইল ফোন দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিল কংগ্রেস। একধাপ এগিয়ে আজ ইয়েদুরাপ্পা বলেন, ‘ক্ষমতায় এলে বিপিএল পরিবারগুলিকে স্মার্টফোন এবং কলেজ ছাত্রদের ল্যাপটপ দেবে বিজেপি সরকার। ভাগ্যলক্ষ্মী যোজনার আওতায় ২ লক্ষ টাকাও দেওয়া হবে।’ একদিকে রাহুল ৩ গ্রাম সোনার থালা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। তার পাল্টা দিয়ে ইয়েদুরাপ্পা বলেন, সস্তায় খাওয়ার জন্য ‘অন্নপূর্ণা ক্যান্টিন’ তৈরি করা হবে। লক্ষণীয় বিষয় হল, ‘অন্নপূর্ণা’ নামটি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মস্তিষ্কপ্রসূত। মাসখানেক আগেই ‘২১শে অন্নপূর্ণা’ নামক প্রকল্প চালু করেন তিনি। ফলে বলাই চলে, কিছুটা মমতার দেখানো পথে হেঁটেই কর্ণাটকে ইস্তেহার প্রকাশ করল বিজেপি।

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here