ডেস্ক: বিগত কয়েকদিন ধরে হিংসায় উত্তপ্ত রানিগঞ্জ ও আসানসোল। একাধিকবার কেন্দ্রের তরফে রাজ্য সরকারকে আধা সেনা মোতায়েনের প্রস্তাব দেওয়া হলেও, কেন্দ্রের প্রস্তাব নাচক করেছে রাজ্য। এরইমাঝে এলাকার পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে রানিগঞ্জ ও আসানসোলে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিল বিজেপি। জানা গিয়েছে বিজেপি নেতা শাহনওয়াজ হোসেনের নেতৃত্বে আসানসোল যাবে বিজেপির চার সদস্যের প্রতিনিধি দল।

সূত্রের খবর, শনিবার বা রবিবার হিংসায় জর্জরিত ওই এলাকা পর্যবেক্ষন করতে যাবেন কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। জানা গিয়েছে, কেন্দ্রের তরফে পাঠানো ওই প্রতিনিধি দলে থাকবেন বিহারের প্রাক্তন পুলিশ প্রধান ও বিজেপি সাংসদ রূপা গাঙ্গুলিও। বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই আলোচনায় বসেছে কেন্দ্র। শুক্রবার রাতের মধ্যেই চূড়ান্ত হয়ে যাবে কবে এবং কারা কারা যাবেন এই প্রতিনিধি দলে। অন্যদিকে, রানিগঞ্জ ও আসানসোল হিংসার জেরে এদিন সমস্ত দায়ভার রাজ্যের ঘাড়ে চাপান কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হংসরাজ আহির। এদিন তিনি বলেন, ‘মানুষকে নিরাপত্তা দেওয়া সরকারের দায়িত্ব। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ সরকার সেই দায়িত্ব পালন করতে সম্পূর্ণরুপে ব্যর্থ হয়েছে।’ একইসঙ্গে রাজ্য সরকারের নিরপেক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, ‘নিরাপত্তার স্বার্থে একজন মুখ্যমন্ত্রীকে সর্বদাই নিরপেক্ষ থাকা উচিৎ। সব বিষয় নিয়ে রাজনীতি করা উচিৎ নয়।’ একইসঙ্গে আসানসোলের সার্বিক পরিস্থিতির খোঁজ খবর নিয়ে এবং এই অবস্থাকে গুরুত্ব দিয়ে দেখতে আসানসোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়কে এদিন ডেকে পাঠালেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তাঁর ডাকে সাড়া দিয়ে শুক্রবারই দিল্লির উদ্দেশ্যে রওনা দেন বাবুল।

উল্লেখ্য, রামনবমীর সময় থেকে শুরু হওয়া সাম্প্রদায়িক অশান্তিতে কার্যত বিধ্বস্ত আসানসোল-রানিগঞ্জের জনজীবন। ভয়ে সিটিয়ে রয়েছেন সাধারণ মানুষ। রাস্তাঘাটও শুনশান। প্রায় ৮০০ পুলিশ সহ ৩ অফিসারকে সেখানে পাঠিয়েছে নবান্ন। এই অবস্থায় গতকাল বাবুল আসানসোল যেতে চাইলে তাঁর পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়ায় পুলিশ। একপ্রস্থ ধাক্কাধাক্কি বাকবিতণ্ডা শেষে ফিরে যান বাবুল। তাঁর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় মামালা দায়ের করে পুলিশ। বাবুল আসানসোলের পরিস্থিতি উত্তপ্ত হওয়ার কারণে রাজ্যের ব্যর্থতার কথা তুলে ধরে আধাসেনা মোতায়েনের হয়ে সওয়াল করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here