kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, দুর্গাপুর: কাঁকসার বাঁশকোপার কাছে ‘রিটজ’ নামে একটি হোটেলে সোমবার রাতে বাঁশকোপা গ্রামের বাসিন্দাদের একাংশ মধুচক্র চলছে এই অভিযোগে হোটেলের বাইরে বিক্ষোভ শুরু করেl পাপ্পু গোঁপ নামে এক গ্রামবাসীর অভিযোগ, প্রতিদিন এই হোটেলে নিয়ম করে চলছে মধুচক্র, বাইরে থেকে অনেক ছেলে মেয়ে এই হোটেলে রীতিমতো এসে এই অসামাজিক কাজে লিপ্ত হয়ে পড়েছে, আজ আমরা হাতে নাতে এদের ধরে ফেলে পুলিশকে ডাকি। গ্রামবাসীদের আরও অভিযোগ, এই অসামাজিক কাজের দরুণ এলাকার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে l

এই অভিযোগ তুলে গ্রামবাসীরা প্রবল বিক্ষোভ শুরু করে দেয় হোটেলের সামনে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে কাঁকসা থানার পুলিশ, তল্লাশি শুরু হয় হোটেলের প্রতিটি রুমেl এরপর পুলিশ হোটেলের ছাদ থেকে তিন মহিলা ও দুই জন পুরুষকে পুলিশ বের করে আনলে স্থানীয় জনতা ক্ষোভে ফেটে পরে, রীতিমতো বিক্ষোভের আঁচও আরও তীব্র হয়, পুলিশ কোনওক্রমে এদের জনতার রোষের হাত থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়l গ্রামবাসীদের অভিযোগ, আমরা যে অভিযোগ করছিলাম তা যে কতটা সত্যি এই ছবি তা প্রমাণ করে দিল। এরপর পুলিশের কাছে হোটেল মালিকের গ্রেপ্তারের দাবীতে ক্ষোভে ফেটে পড়েন স্থানীয় গ্রামবাসীরা, ফের বিক্ষোভ শুরু হয় হোটেলের গেটের সামনে l এই খবর পেয়ে কাঁকসা থানার আরো কয়েক গাড়ী পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে, উত্তেজিত গ্রামবাসীকে শান্ত করার চেষ্টা করে, কিন্তু গ্রামবাসীরা দাবী জানাতে থাকে অনেক হয়েছে এবার এই হোটেল বন্ধ করে দিক পুলিশ, কারণ এই অসামাজিক কাজ তারা চলতে দেবেন না এখানে l

কাঁকসা থানার পুলিশ এরপর হোটেল মালিককেও গ্রামবাসীদের প্রবল বিক্ষোভের মুখ থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। সোমবার এই ঘটনাকে ঘিরে কাঁকসার বাঁশকোপার কাছে দুই নম্বর জাতীয় সড়কের ধারে থাকা ঐ হোটেল চত্বরে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে l তবে কাঁকসা থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী যদি ঘটনাস্থলে না পৌঁছতো তাহলে উত্তেজিত জনতার রোষের শিকার হতো অনেকে, জটিল হতো আরও পরিস্থিতি। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এরা অনলাইনে হোটেলে বুকিং করেছিল, আর যেকোনও প্রাপ্ত বয়স্ক ছেলে মেয়ে নিজস্ব পরিচয়পত্র দেখিয়ে হোটেলে থাকতে পারে সম্প্রতি আদালতের একটি রায়ের প্রেক্ষিতে পুলিশ এদের ছেড়ে দেয়। শুধুমাত্র জনরোষের মুখে পর কোনও বড় অপ্রিয় ঘটনা না ঘটে তার জন্য পুলিশ হোটেল থেকে এদের উদ্ধার করে আনে বলে জানায়। যদিও কোনোরকম খারাপ কাজ এই হোটেলে হয় না বলে জানিয়ে দিয়েছে হোটেল কর্তৃপক্ষ, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে হোটেলের সুনাম নষ্টের পাল্টা অভিযোগ এনেছে হোটেল কর্তৃপক্ষl

মধুচক্রের অভিযোগ তুলে ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দিয়ে কাঁকসা বাঁসকোপায় হোটেলে চড়াও হয় বিজেপি কর্মীরা অভিযোগ হোটেল মালিকের। পশ্চিম বর্ধমান জেলার কাঁকসা বাঁসকোপা টোল প্লাজার কাছে একটি হোটেলে হামলার অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে। সোমবার রাতে হোটেলে মধুচক্রের আসর বসছে অভিযোগ তুলে হোটেলের রিশেপশনে ঢুকে পরে একদল উন্মত্ত লোক। হোটেলের কর্মীদের ধাক্কাধাক্কিও করে তারা। অভিযোগ হোটেলের রেজিস্টার ছিনিয়ে নেয়। এরপর হোটেলের চার তলায় উঠে তিনটি রুমে ঢুকে তাণ্ডব চালানোর অভিযোগ। গ্রাহকদের ভিডিও ছবিও তোলা হয় বলে অভিযোগ। মহিলা গ্রাহকদের শ্লীলতাহানির চেষ্টাও করে বলে অভিযোগ। প্রায় চল্লিশ মিনিট তাণ্ডব চালানোর পর ঘটনাস্থলে পৌঁছায় কাঁকসা থানার পুলিশ। পুলিশ ছয় জন গ্রাহক ও হোটেল মালিককে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। ঘটনার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছেন হোটেল মালিক সুব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়। কাঁকসা থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here