international news

Highlights

  • আকাশে চক্কর কাটাতে দেখা গেল ধোঁয়ার কুণ্ডলীতে মোড়া একটি কালো রিং
  • শিরোনামে উঠে এল ভারতেরই প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানের লাহোর
  • ওটা মেঘ না কি ভিনগ্রহীর মহাকাশযান তা নিয়ে পোক্ত কোনও যুক্তি এখনও আসেনি

মহানগর ওয়েবডেস্ক: তেনারা আছেন কি নেই? সে বিষয়ে বিশ্বজুড়ে তাবড় তাবড় বিজ্ঞানীদের মধ্যে দ্বন্দ্বের অন্ত নেই। তবে অনুমানের সঙ্গে প্রমাণের মেলবন্ধন না ঘটায় বিতর্কটা রয়েই গিয়েছে। যদিও যুক্তি বলে, বিশাল মহাকাশের ছোট্ট পৃথিবীতে যদি প্রাণের সঞ্চার ঘটতে পারে তাহলে মহাকাশের কোনও এক অচিন গ্রহে থাকতেই পারে প্রাণ। হতে পারে তারা পৃথিবীর তুলনায় অনেক বেশি আধুনিকও। তবে এলিয়েন বিতর্ক থাকলেও অনেকের দাবি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে তারা উন্নত তো বটেই পৃথিবীর মাটিতেও তাদের নিত্য যাতায়াত। এবার সেই এলিয়েন বা ভিনগ্রহীর আগমনেই রীতিমতো সাড়া পড়ে গেল বিশ্বজুড়ে। খবরের শিরোনামে উঠে এল ভারতেরই প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানের লাহোর। সোশ্যাল মিডিয়াতে ছড়িয়ে পড়ল সেই ঘটনার ভিডিও। তবে এলিয়েনের দেখা পাওয়া না গেলেও আকাশে চক্কর কাটাতে দেখা গেল ধোঁয়ার কুণ্ডলীতে মোড়া একটি কালো রিং।


এদিন পাকিস্তানবাসীকে রীতিমতো চমকে দিয়ে লাহোরের আকাশে ঘুরে বেড়াতে দেখা গেল একটি কালো রিং। ভিনগ্রহীর আগমন ভেবে সেই কালো রিংয়ের ভিডিও তুলতে শুরু করেন অত্যুৎসাহী লোকজন। মুহূর্তে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায় সেই ঘটনার ভিডিও। অনেকেই দাবি করেন এটা ভিনগ্রহীদের কোনও মহাকাশযান। পাশাপাশি অনেকের দাবি, এটা অশুভ কোনও এক মেঘ। ঘটনা যাই হোক না কেন বিষয়টি যে মানুষের মধ্যে বেশ চাঞ্চল্য তৈরি করেছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে ওটা মেঘ না কি ভিনগ্রহীর মহাকাশযান তা নিয়ে শক্তপোক্ত কোনও যুক্তি এখনও আসেনি।

কিন্তু আকাশে এমন কালো রিং দেখার ঘটনা এই প্রথমবার নয়, এর আগেও কাজাকিস্তানের আকাশে এক স্কুল ছাত্রী ঠিক এমনই কালো রিং দেখে আকাশে। যদিও পরে জানা যায় পাশেই একটি এলাকায় আতসবাজি পরীক্ষার জন্য তৈরি হয়েছিল ওই কালো মেঘ। অনেকেই বলেছেন গোলাকার পথে কোনও রকম বিস্ফোরণ ঘটানো হলে এমন রিং তৈরি হতেই পারে। তবে জল্পনা কিন্তু এই টুকুতেই থামছে না। কারণ গল্পকথা হোক বা সাইন্স ফিকশন সিনেমা, মেঘের মোড়কে মহাকাশযান তো আর নতুন কিছু নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here