kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: দীর্ঘ প্রায় ৪৮ ঘণ্টারও বেশি পার হয়ে গেলেও মৃত কোভিড রোগীর দেহ সৎকার না হওয়ার অভিযোগ উঠেছিল হাওড়ায়। শেষে প্রাক্তন জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের তৎপরতায় পরিস্থিতির সমাধান হয়। দেহ উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয়। জানা গিয়েছে, বেলুড়ের এক ব্যক্তি শনিবার দুপুরে লিলুয়ার রেল হাসপাতালে মারা যান। কিন্তু তারপর থেকে দেহ সৎকার কারা করবে সেই নিয়ে টানাপোড়েন শুরু হয় বলে অভিযোগ। দেহটি ওইভাবেই পড়ে থাকার অভিযোগ ওঠে। এর জেরে মৃতের কন্যা বাবার দেহ সৎকারের আশায় বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করতে থাকেন।

মৃতের পরিবারের অভিযোগ, হাসপাতাল থেকে প্রাইভেট অ্যাম্বুল্যান্সের নম্বর দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা প্রচুর টাকা দাবি করে। মৃতের আত্মীয় শত্রুঘ্ন পণ্ডিত জানান, তাঁর শ্বশুরের মৃতদেহ এত ঘণ্টা ধরে পড়েছিল ওই হাসপাতালে। কিন্তু সৎকারের কোনও ব্যবস্থা করা হচ্ছিল না। হাসপাতালের পক্ষ থেকে সব ব্যবস্থা করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কিছুই হয়নি। উল্টে আমাদের ফোন করে জানানো হয় পুরনিগম থেকে কোনও অ্যাম্বুল্যান্স পাঠানো হচ্ছে না। বেসরকারি অ্যাম্বুল্যান্সের ব্যবস্থা করে মৃতদেহ নিয়ে যেতে বলে তারা।

এই ঘটনা প্রসঙ্গে মৃতের মেয়ে কমলিকা বাইন জানান, তাঁর বাবার কোভিড হয়েছিল। ফুসফুস নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। প্রথমে তাঁকে স্থানীয় একটি নার্সিংহোমে ভর্তি করা হয়। পরে সেখান থেকে লিলুয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে নিয়ে আসা কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তিনি মারা যান। হাসপাতাল থেকে তাদের বলা হয় পরিবারের সদস্যরা সম্পূর্ণ নিজেদের দায়িত্বে মৃতদেহ নিয়ে যেতে পারবেন অথবা মৃতদেহ নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করবে হাসপাতাল। হাওড়া পুরনিগমের অ্যাম্বুল্যান্স এলে তারপর তাদের ডাকা হবে। এরপর সোমবার দুপুর কেটে গেলেও দেহ নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা হয়নি। হাসপাতালেই মৃতদেহ পড়েছিল। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের যুক্তি, রবিবার ছুটির জন্য পুরনিগম গাড়ি পাঠাতে পারেনি। সোমবারও তারা আসতে পারবে না। এতদিন মৃতদেহ হাসপাতালে রাখা সম্ভব নয় বলে বেসরকারি অ্যাম্বুল্যান্সে মৃতদেহ নিয়ে যাওয়ার জন্য তাদের অ্যাম্বুল্যান্সের নম্বর দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তাঁর অভিযোগ, মৃতদেহ দীর্ঘক্ষণ পড়ে ছিল। সৎকার হয়নি। এটা একটা দুঃখজনক ঘটনা। এই ঘটনা প্রসঙ্গে কিছু জানাতে চায়নি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এদিকে, পরে শেষপর্যন্ত প্রাক্তন জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনের উদ্যোগে সৎকারের জন্য দেহ উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here