ডেস্ক: সিনেমার চিত্রনাট্যকেও হার মানাবে এই ঘটনা। বোমা নিয়ে একেবারে আদালতের মধ্যে হাজির দুষ্কৃতীরা। আদালতে আচমকা সশব্দে ফাটল বোমা, আর তারপরেই খুনের আসামিকে নিয়ে চম্পট দেয় দুষ্কৃতীরা। ঘটনাটি ঘটেছে কাঁথি আদালতে। এই ঘটনার জেরে আওয়াজ শুনে আদালত চত্বরে নিমেষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। হুড়োহুড়ি শুরু করে আদালতের মধ্যে থাকা ব্যক্তিরা। আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে, খুনের মামলায় অভিযুক্ত কর্ণ বেরাকে ওইদিন আদালতে শুনানির জন্য তোলার কথা ছিল পুলিশের। কিন্তু ওইদিন আদালতে শুনানির আগেই কর্ণ বোমা ছোড়ে বলে অভিযোগ।

এই ঘটনার পর কাঁথির পুলিশকর্মীরাও একেবারে তাজ্জব বনে গেছেন। তারা কল্পনাও করতে পারেননি এমনভাবে কোনও আসামি আদালত চত্বরে বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে। একাবারে ফিল্মি কায়দায় ছক কষে বোমা গুলি চালিয়ে আসামি ছিনতাই। এই বোমা বিস্ফোরণের ফলে কাঁথির দুই পুলিশকর্মী হাসপাতালে গুরুতর ভাবে জখম হয়েছেন। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। কাঁথি মহকুমার পুলিশ জানিয়েছে, ওইদিন কর্ণকে আদালতে তোলার কথা ছিল। এরপর হঠাৎ করেই একদল দুষ্কৃতীরা আদালতে চড়াও হয় বোমা নিয়ে। এরপরেই আদালত চত্বর সশব্দে বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে। ততক্ষণে পুলিশ এবং বিচারকরাও আন্দাজ করতে পারেনি ঠিক কী ঘটল। এরপরেই নজরে আসে খুনের অভিযোগে অভিযুক্ত কর্ণ বেরাকে বাইকে চাপিয়ে চম্পট দেয় দুষ্কৃতীরা। আদালত চত্বরে হুড়হুড়ি করতে গিয়ে আহতও হয়েছেন বেশ কয়েকজন।

এত পরিকল্পনার পরেও পার পেল না কর্ণ বেরা। সমস্ত ছক বিফলে গেল। শেষমেশ পুলিশের জালে ধরা পড়ে গেল কর্ন বেরা। বাইক নিয়ে পালানোর সময় কোনও কারণ বসত বাইকটা স্টার্ট নিচ্ছিল না, তাই বাইকটাকে হাঁটিয়ে হাঁটিয়ে নিয়ে গিয়ে এলাকার এক প্রতিবেশীর বাড়িতে আশ্রয় নেয় কর্ণ। এই সেটি দেখে ফেলেন এলাকার বাসিন্দারা। খবর পেয়ে বিশাল পুলিশ বাহিনী এলাকায় যায় বিশাল পুলিশ বাহিনী। বাড়িটি ঘিরে ফেলে আত্মসমর্পণ করার জন্য আবেদন জানানো হয়। পরে সেই বাড়ি থেকেই ফের গ্রেফতার করা হয় কর্ণ বেরাকে। গ্রেফতারের পর কর্ণকে কাঁথি থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here