kolkata news

নিজস্ব প্রতিনিধি : অন্য নারীর সঙ্গে সম্পর্ক। সন্দেহ গাঢ় হচ্ছিল দিনের পর দিন। তার জেরে খাওয়াদাওয়া, ঘুম লাটে ওঠার জোগাড় বছর চল্লিশের ফুংয়ের। ভালোবাসার মানুষটি যাতে নিজের বশে থাকে সারাজীবন, তাই তাঁর পুরুষাঙ্গ কেটে নিয়ে কমোডে ফেলে ফ্ল্যাশ করে দিলেন তিনি। আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বছর বাহান্নর ওই ‘প্রেমিক’কে। গ্রেফতার করা হয়েছে তাঁর ফুংকে।  

তাইওয়ানের ছাংউয়া কাউন্টির জিহু টাউনশিপে বাস করেন ফুং। বছর চল্লিশের এই মহিলা বিবাহ বিচ্ছিন্না। মাস কয়েক আগে তাঁরই প্রেমে পড়েন বছর বাহান্নর ওই ‘যুবক’। তিন সন্তানের এই ব্যক্তি পুরানো সংসার ছেড়ে এসে ফুংয়ের কাছেই থাকতে শুরু করেন। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে ভালোবাসার উষ্ণতা। ফুংয়ের সুখী গৃহকোণে দিব্যি খেয়ে-ঘুমিয়ে দিন কাটছিল ওই ব্যক্তির।

কিছুদিন আগে ফুংয়ের মনে দানা বাঁধে সন্দেহ। তাঁর মনে হয় ওই ব্যক্তির ভালোবাসায় কোথাও যেন খামতি রয়েছে। তিনি নিশ্চয়ই অন্য কোনও মহিলার প্রেমে পাগলপারা। ফুংয়ের মনে দানা বাঁধা সন্দেহের বীজ ক্রমেই মহীরুহে পরিণত হয়। লাঠে ওঠে ঘুম-খাওয়াদাওয়া। সন্দেহের জীবনে ইতি টানতে বয়ফ্রেন্ডকে জব্দ করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে সে। সেই মতো দিন কয়েক আগে ওই ব্যক্তি ঘুমিয়ে পড়লে ধারালো অস্ত্র দিয়ে ফুং তাঁর পুরুষাঙ্গ কেটে নেন বলে অভিযোগ। পরে তা কমোডে ফেলে ফ্ল্যাশও করে দেন। নিজে গিয়েই খবর দেন থানায়। তাঁকে উদ্ধার করে ভর্তি করা হয় স্থানীয় হাসপাতালে। হাসপাতাল সূত্রে খবর, ওই ব্যক্তি আপাতত সুস্থ। তবে ভবিষ্যতে আর সঙ্গম করতে পারবেন না। কী লাভ হল ফুংয়ের? প্রশ্ন তাঁর প্রতিবেশীদেরই।     

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here