নিজস্ব প্রতিবেদক, উলুবেড়িয়া: রবিবার রাত পোহালেই হত তার শাদি। যদিও সে শাদিতে তীব্র আপত্তি বাড়িরই বড় জামাইয়ের। কারন আদরের ছোট শ্যালিকে সে নিজেই তো বিয়ে করতে চাইছে। কিন্তু জামাইবাবুর সে প্রস্তাবে একদমই রাজি হয়নি বছর কুড়ির সেই তরুণী। বরঞ্চ সাফ জানিয়েছিল, জামাইবাবুকে দাদার মতোই দেখি তাই বিয়ের প্রশ্নই নেই। শ্যালিকার সেই প্রত্যাখ্যান মেনে নিতে পারেনি লালসায় মত্ত বাড়ির বড় জামাই। সুযোগ পেয়ে শুক্রবার রাতে আসিড ছুঁড়ে ঝলসে দিল শ্যালিকার শরীর। ঘটনাস্থল হাওড়া জেলার উলুবেড়িয়া থানার খলিসানি পূর্বপাড়া এলাকা। জানা গেছে, শ্যালিকা রেহানা মল্লিকের(২০) বিয়ের দেখাশোনা হয়েছিল হাওড়ার শ্যামপুরের এক যুবকের সঙ্গে। আগামী পরশু দিন সোমবার তাদের বিয়ের দিন স্থির হয়েছিল। অভিযোগ, রেহানার জামাইবাবু শেখ শরিফুল(৩২) প্রথম থেকেই এই বিয়েতে বাধা দিচ্ছিল। সে শ্যালিকাকে নিজেই বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে বসে। অভিযোগ, বিভিন্নভাবে কুপ্রস্তাবও দিচ্ছিল শয়তানটা। কিন্তু জামাইবাবুর এই প্রস্তাবে রাজি হয়নি রেহানা। এরপরই শুক্রবার রাতে বাড়িতে একা থাকার সুযোগে শরিফুল শ্যালিকার ঘরে ঢুকে শ্যালিকার গায়ে আসিড ঢেলে দেয়। রেহানার পিঠ, বুক সহ শরীরের নানা অংশ অ্যাসিডে পুড়ে যায়। ঘটনার পর থেকেই পলাতক শরিফুল। রেহানাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্ত্তি করা হয়েছে উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালে। রেহানার পরিবার উলুবেড়িয়া থানায় শরিফুলের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here