news bengali

মহানগর ওয়েবডেস্ক: পাত্রের বাড়ি কনৌজে। পাত্রী থাকে কানপুরে। গত ৪ মে সাত পাকে বাঁধা পড়ার কথা ছিল তাদের। কিন্তু দেশজোড়া লকডাউনের কারণে ভেস্তে যায় বিবাহ। তবে, নিজের বিয়ে ভেঙে যাওয়া মন থেকে কিছুতেই মানতে পারেনি পাত্রী। তাই বিয়ে করতে কানপুর থেকে কনৌজ, প্রায় ৮০ কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে পাড়ি দিল পাত্রী, তাও আবার একাই।

পাত্রের নাম বীরেন্দ্র কুমার (২৩) ও পাত্রী গোল্ডি (২০)। মার্চ মাসে তাদের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু লকডাউন শুরু হওয়ায় তা ভেস্তে যায়। এরপর নতুন বিয়ের তারিখ ৪ মে ঠিক হয়। কিন্তু ভাগ্যের ফেরে সেটাও পিছিয়ে দেন কন্যাপক্ষ। ফলে একেবারেই মুষড়ে পড়েছিল গোল্ডি। হবু বর বীরেন্দ্রকেও ফোনে বারবার সেই কথাই বলত সে।

অবশেষে বুধবার কানপুরের লক্ষ্মনপুর তিলক গ্রামের বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে পড়ে সে একাই। গন্তব্য কনৌজের নিকটে বৈশ্যপুরে হবু বর বীরেন্দ্রর বাড়ি। দীর্ঘপথ অতিক্রম করে অবশেষে বীরেন্দ্রর বাড়ি পৌঁছায় গোল্ডি। প্রথমে তাকে দেখে চমকে গেলেও বিয়ের প্রস্তুতি শুরু করে দেন পাত্রের বাড়ির লোকজন। একেবারে সোশ্যাল ডিস্টানসিং মেনেই স্থানীয় এক মন্দিরে বিয়ে হয়ে যায় গোল্ডি ও বীরেন্দ্রর। এমনকি পাত্র ও কন্যাও মাস্ক পরেই বিয়ের আসরে বসেন।

প্রসঙ্গত, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু এর ফলে প্রচুর বিয়ে ভেস্তে গিয়েছে কার্যত। ফলে শহরে অনেকেই ভিডিয়ো কনফারেন্সের মাধ্যমে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হচ্ছেন। আত্মীয়রাও বিয়ের সাক্ষী থাকছেন সেই ভিডিয়ো কলেই। প্রসঙ্গত, উত্তরপ্রদেশে এখনও পর্যন্ত প্রায় ৫৭০০ জন করোনায় আক্রান্ত, মারা গিয়েছেন ১৩০ জন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here