ডেস্ক : জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ড ব্রিটেনের ইতিহাসে এক লজ্জাজনক অধ্যায়। শনিবার জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ডের শতবার্ষিকীতে অমৃতসরে এসে এমনই মন্তব্য করলেন ভারতে নিযু্ক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার স্যার ডোমিনিক আসকুইথ। তিনি জালিয়ানওয়ালাবাগ স্মৃতিসৌধে গিয়ে ফুল দিয়ে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপনও করে সেখানকার ভিজিটার্স বুক-এ লেখেন, ‘১০০ বছর আগে ঘটে যাওয়া জালিয়ানওয়ালাবাগের এই নৃশংস ঘটনা আজও ব্রিটেন-ভারতের ইতিহাসে লজ্জাজনক অধ্যায়। এই ঘটনার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত। তবে বর্তমানে ভারত এবং ব্রিটেন যৌথভাবে ২১ শতকের উন্নয়নের জন্য কাজ করছে, এর জন্য আমি খুশি।’

কেবল ডোমিনিক আসকুইথ নন, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে-ও জালিয়ানবাগ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করেছেন। গত বুধবার হাউস অফ কমনস-এ এক বিবৃতি দিয়ে তিনি বলেছেন, ‘১৯১৯ সালে জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ড ব্রিটেন-ভারতের ইতিহাসের একটি লজ্জাজনক ক্ষত। এই ঘটনা ও তার পরিণামের জন্য আমরা মর্মাহত।’ এদিন জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ডের ১০০ বছর পূর্তিতে শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করে টুইট করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী জালিয়ানওয়ালাবাগ স্মৃতিসৌধে গিয়ে ফুল দিয়ে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

প্রসঙ্গত, ১৯১৯ সালের ১৩ এপ্রিল ব্রিটিশ সেনা কম্যান্ড জেনারেল ডায়ারের নির্দেশে জালিয়ানওয়ালাবাগে জমায়েত হওয়া কয়েকশো মানুষকে নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here