ডেস্ক: বিতর্কিত মন্তব্য করে কিভাবে শিরোনামে আসা যেতে পারে তা রাজনৈতিক নেতাদের চেয়ে ভালো বোধহয় আর কেউ জানেন না। রাজ্য তথা দেশে মাঝে মধ্যেই মুখ খুলে নিজেদের বিপদ বাড়িয়েছেন একাধিক রাজনৈতিক নেতা। সেই তালিকায় নবতম সংযোজন রাজস্থানের ধরমবীর সিং। দুশো বছর ব্রিটিশ অপশাসনের পর যে রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের মধ্যে ভারত স্বাধীন হয়েছে তা ভুলে ওই নেতার দাবি, আরও ১০০ বছর ভারতে ব্রিটিশ রাজের প্রয়োজন ছিল।

সামনেই রাজস্থানে বিধানসভা নির্বাচন তার আগে, গত বৃহস্পতিবার রাজস্থানের এক র‍্যালিতে উপস্থিত হয়েছিলেন ওই বিএসপি নেতা। এহেন মন্তব্য করে বিতর্কের মোড়কে মুড়ে ফেললেন নিজেকে। তাঁর দাবি, ‘ভারতে আরও ১০০ বছর রাজত্ব করা উচিত ছিল ব্রিটিশদের। তাহলেই ভারতে তপশীলি জাতি-উপজাতি ও পিছিয়ে পড়া শ্রেণীর মানুষের আরও উন্নতি সাধন হত।’ তবে শুধু এইটুকুতেই খান্ত থাকেননি ধরমবীর। তাঁর আরও দাবি, ‘ভারতে ব্রিটিশ রাজ না থাকলে বি আর আম্বেদকর পড়াশুনা করার সুযোগ পেতেন না। ব্রিটিশ রাজের ফলেই সেই সুযোগ পেয়েছেন আম্বেদকর। আর তাঁর রচিত সংবিধানের জেরে কিছুটা হলেও অগ্রসর হয়েছে পিছিয়ে পড়া শ্রেণীর জীবনধারা।’ তবে এই সব যুক্তিতে কোনও রকমভাবেই ভেজেনি চিঁড়ে। উল্টে দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামীদের অপমান করার অভিযোগ উঠেছে ধরমবীরের বিরুদ্ধে। অনেকে আবার তাঁকে লন্ডন চলে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

এদিকে তাঁর এই মন্তব্যের জেরে বেশ অস্বস্তিতে পড়েছে মায়াবতীর বিএসপি দল। কারণ সামনেই রাজস্থানে বিধানসভা নির্বাচন তার আগে দলের নেতার এহেন মন্তব্য যে জন মানসে কি পরিমাণ খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে তা নতুন করে বলার অপেক্ষা রাখে না। রাজস্থানে দলিত ভোট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় তাই বলে, স্বাধীনতা সংগ্রামীদের অপমানকে হাতিয়ার করে শত্রুরা উল্টো প্রচারে নামতে পারে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। সবমিলিয়ে এক মন্তব্যে রাজস্থানে বেশ বিপাকে পড়ল বিএসপি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here