বালি বোঝাই ট্রাক্টরের পিছনে ট্যুরিস্ট বাসের ধাক্কা, গুরুতর আহত ২০, আশঙ্কাজনক ৭

0
285

নিজস্ব প্রতিবেদক, তমলুক: রাঁচি ঘুরে ফেরার পথে বড় দুর্ঘটনার কবলে পড়ল হাওড়ার বকুলতলা এলাকার একদল পর্যটক। রাস্তার উপর দাঁড়িয়ে থাকা বালি বোঝাই ট্রাকটির পিছনে ধাক্কা মারে তাদের বাসটি। শনিবার ভোরে পাঁশকুড়া থানার ধুলিয়াড়া বাসস্ট্যান্ডের কাছে ৬ নম্বর জাতীয় সড়কে এই দুর্ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। পুলিশ জানায়, এই দুর্ঘটনায় বাসের কমপক্ষে ২০ জন যাত্রী গুরুতর আহত হয়েছেন। যার মধ্যে ৭ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। অবিরাম বৃষ্টি এবং মেঘাচ্ছন্ন অন্ধকারে সামনে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকটি বুঝতে না পেরেই বাসটি তার পিছনে ধাক্কা মেরেছে বলে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান। যদিও এই দুর্ঘটনার জন্য চালককেই দায়ী করেছেন বাস যাত্রীরা। পাঁশকুড়া থানার ওসি অজয় মিশ্র জানিয়েছেন, ট্রাক ও দুর্ঘটনাগ্রস্ত বাসটিকে আটক করা হয়েছে। তদন্ত শুরু হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, হাওড়ার বকুলতলা এলাকার একদল পর্যটক একটি টুরিস্ট বাসে করে রাঁচি বেড়াতে গিয়েছিলেন। এদিন তাঁরা ওই বাসে করে বাড়ি ফিরছিলেন। পাঁশকুড়া থানার ধুলিয়াড়া বাসস্ট্যান্ডের কাছে ৬ নম্বর জাতীয় সড়কের উপর বালি বোঝাই একটি লরি দাঁড়িয়েছিল। হঠাত্ই ওই ট্রাকটির পিছনে ধাক্কা মারে পর্যটকবোঝাই বাসটি। বাস ও ট্রাকের সংঘর্ষে একটি জোরালো শব্দ হয়। বর্ষার সকালে হঠাত্ করে বিকট আওয়াজ শুনতে পেয়ে স্থানীয় বাসিন্দারা তড়িঘড়ি ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং সেখানে গিয়েই সকলের চক্ষু চড়কগাছ! প্রত্যক্ষদর্শীদের কথায়, ‘দুর্ঘটনার ভয়াবহতা এতটাই ছিল যে বাসের সামনের অংশ একেবারে দুমড়ে-মুচড়ে ট্রাকটির পিছনে ঢুকে গিয়েছে।’ তাঁরাই প্রথমে বাসযাত্রীদের উদ্ধারকাজে হাত লাগান। পরে খবর পেয়ে পাঁশকুড়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে যায় এবং আহত বাসযাত্রীদের উদ্ধার করে।

পাঁশকুড়া থানার ওসি জানিয়েছেন, দুর্ঘটনাগ্রস্ত বাসটি থেকে গুরুতর আহত ২০ জন যাত্রীকে উদ্ধার করে প্রথমে পাঁশকুড়া সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে ৭ জনের আঘাত গুরুতর হওয়ায় তাঁদের কলকাতার বেসরকারি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। বাসযাত্রীদের অভিযোগ, বাসের চালক ঘুমিয়ে পড়েছিলেন। তার জেরেই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। তবে অবিরাম বৃষ্টির কারণে সামনে কিছু দেখতে না পেয়েও দুর্ঘটনাটি ঘটার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছে না পুলিশ। তদন্ত শুরু হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here