kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, বারুইপুর: রাতভর খালে পড়ে থাকার পর শুক্রবার সকালে উদ্ধার হল পাচার হতে যাওয়া একটি উট। বারুইপুরের উত্তরভাগের এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। স্থানীয় কয়েকজন ছেলে কোমরসমান জলে নেমে কয়েক ঘণ্টার চেষ্টায় উটটিকে উদ্ধার করে প্রাণ বাঁচায়। সূত্রের খবর, গত ২৪ জুলাই রাজস্থান থেকে বকুলতলার দিকে যাচ্ছিল ট্রাক ভর্তি ১১টি উট। অভিযোগ ওঠে, এর মধ্যে ৪টি উট গাড়িতেই মারা যায়। বারুইপুর থানার পুলিশ ওই ট্রাকটি বাজেয়াপ্ত করে। উদ্ধার করে ৭টি উটকে। ওই উটগুলিকে দেখভালের জন্য এক বেসরকারি সংস্থার হাতে তুলে দেওয়া হয়।

উটগুলিকে রাখা হয় উত্তরভাগের সত্যানন্দ আশ্রম সংলগ্ন এলাকায়। কিন্তু, দুই মাসের মধ্যেই ৩টি উট মারা যায়। এলাকার বাসিন্দারা অভিযোগ করেন, অযত্নের ফলেই মারা গিয়েছে ৩টি উট। বাকি ৪টিকেও অবহেলার মধ্যে রাখা হয়েছে। এদের শরীরে রোগের থাবা বসেছে। হাঁটাচলার ক্ষমতা নেই। ঠিকমতো খাওয়া দেওয়া হয় না। নজর না রাখার ফলেই একটি উট খালে পড়ে যায় বৃহস্পতিবার সন্ধের পর।

যদিও ওই বেসরকারি সংস্থার কর্তা সুব্রত দাস বলেন, এই আবহাওয়া এদের জন্য অনুকূল নয়। তাই এদের এই অবস্থা হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে এলাকার বাসিন্দারা বলেন, আবহাওয়া অনুকূল না হলে কেন খোলা আকাশের নিচে চারটি উটকে রেখে রেখে দেওয়া হয়েছে? সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে না কেন? মৃত্যুর মুখে তাদের ঠেলে দেওয়া হচ্ছে।

যদিও এই উটের দায়িত্বে থাকা কিশোর গুড্ডু মণ্ডল বলে, প্রতিদিনই উটকে গুড়, ভুট্টা, ঘাস খাওয়ানো হয়। এমনকী ওষুধও দেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার সন্ধের পর উটটি রেখে আমি বাজার থেকে দড়ি আনতে গিয়েছিলাম। এসে দেখি খালে পড়ে গিয়েছে। কিন্তু আশ্রমের এক আধিকারিক বলেন, কোনও দিনই উটগুলির প্রতি নজর দেওয়া হয় না। তাই এই পরিস্থিতি। ওদের যে পরিমাণ খাবার দরকার তা দেওয়া হয় না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here