ডেস্ক: মহম্মদ সামির ও তাঁর স্ত্রী হাসিন জাহানকে নিয়ে এই মুহূর্তে উত্তপ্ত গোটা দেশ, এরই মাঝে ফের কেলেঙ্কারিতে জড়ালেন আর এক খেলোয়াড়। ইনি অলিম্পিয়ান টেবিল টেনিস তারকা সৌমজিত ঘোষ। তাঁর বিরুদ্ধে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে দিনের পর দিন ধর্ষণের অভিযোগ তুলে বারাসত থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন এক তরুণী।

ওই তরুণীর দাবি, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে দিনের পর দিন তাঁকে ধর্ষণ করেন সৌমজিত। পরে ওই তরুণী গর্ভবতী হয়ে পড়লে, তাঁকে গর্ভপাত করাতেও বাধ্য করা হয়। শুধু তাই নয়, বিয়ের বিষয়ে প্রথমে কথা দিলেও পরে বেঁকে বসে সৌমজিত। এমনকি ওই তরুণীকে প্রভাবশালীদের দিয়ে ভয় দেখানোরও অভিযোগ করেছেন তিনি। তরুণীর অভিযোগ অনুযায়ী, ‘২০১৪ সালে আমি যখন ক্লাস নাইনে পড়ি তখনই ওর সঙ্গে আমার আলাপ হয়। টেবিল টেনিস খেলার সুবাদে ওকে আমি প্রশিক্ষক হিসাবে চাই। এরপর প্রশিক্ষণের জন্য একাধিকবার ওর বাঘাযতীনের বাড়িতে গিয়েছিলাম আমি। সেখানেই আমাদের শারীরিক সম্পর্ক হয়। এরপর ২০১৬ সালে গর্ভবতী হয়ে পড়ার পর সৌমজিত জোর করে আমার গর্ভপাত করায়।’

এদিকে ওই তরুণীর সঙ্গে সম্পর্কের কথা মেনে নিলেও ধর্ষণের অভিযোগ মানতে নারাজ সৌমজিত। তরুণীর বিরুদ্ধে পাল্টা ব্ল্যাকমেলিংয়ের অভিযোগ তুলেছেন তিনি। উল্লেখ্য, ২০১২ সালে দেশের কনিষ্ঠতম সদস্য ছিলেন সৌমজিত। মাত্র ১৯ বছর বয়সে জাতীয় সেরার শিরোপা পান তিনি। আপাতত লন্ডনে রয়েছেন সৌমজিত। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here