dagar cbi kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: সব সময় আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে থাকে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা বিভাগ(সিবিআই)৷ কখনও রাজীব কুমার কাণ্ডে কখনও বা নিজেদের কর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি তদন্তে- সব সময় সংবাদের শিরোনামে থাকে এই কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা বিভাগ৷ শেষ পর্যন্ত আস্থানা দুর্নীতি মামলার তদন্তর ভার শুধু নয় সিবিআই থেকে পদত্যাগ করছেন সতীশ ডাগর৷  সিবিআই এর প্রাক্তন উপ অধিকর্তা রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধে ঘুষের মামলার তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন তিনি৷ তিনি শুধু এই তদন্তই নয় কাজ থেকে স্বেচ্ছাবসর চেয়ে দরখাস্ত করেছেন৷ সিবিআই এর মুখপাত্র এর সত্যতা স্বীকার করেছেন৷ ব্যক্তিগত সমস্যার জন্য আগেভাগেই কাজ থেকে অবসর চেয়েছেন এই সিবিআই কর্তা৷এমনটাই জানিয়েছে সিবিআই৷ তিনি আস্থানা তদন্ত থেকে আচমকা সরে দাঁড়াতে কেন চাইছেন? এই প্রশ্ন নিয়ে এখন তোলপাড় সিবিআই এর অন্দর মহল৷ উল্লেখ্য আদালত এই তদন্তের সময়সীমা চারমাস বেঁধে দিয়েছিল৷ সেইমতো ৩০ সেপ্টেম্বরই তদন্ত প্রক্রিয়া শেষ হওয়া উচিত৷ তবে এই তদন্তের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে কোনও তথ্য জানায়নি সিবিআই৷

রাকেশ আস্থানা ও প্রাক্তন সিবিআই কর্তা আলোক ভার্মা দুজনেই ঘুষ মামলায় অভিযুক্ত৷ এদের বিরুদ্ধে আদালত তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিল৷ প্রাথমিকভাবে আস্তানার বিরুদ্ধে তদন্তের দায়িত্বে চিলেন একে বাসি৷ তাঁকে আন্দামানে বদলি করার পর তদন্তের দায়িত্ব পেয়েছিলেন সতীশ ডাগর৷ তিনি ১৯৮৬ সালে সিবিআইতে যোগ দেন৷ এর আগে সতীশ বাবু সানা নামে এক ব্যবসায়ী আস্থানার বিরুদ্ধে ঘুষের অভিযোগ জানিয়ে এফআইআর দায়ের করেছিলেন৷ মাংস রপ্তানীকারক কুরেশি বনাম সতীশ বাবুর মামলায় আলোক ও রাকেশ দুই শীর্ষ স্থানীয় সিবিআই কর্তাকে মামলা থেকে ছাড় পাওয়ার জন্য ঘুষ দিয়েছিলেন সতীশ৷ এই মামলার জেরে জোর করে ছুটিতে পাঠানো হয়েছিল এই দুই সিবিআই কর্তাকে৷ সিবিআই এর শীর্ষপদে এরপর আলোককে সরিয়ে নাগেশ্বর রাওকে বসানো হয়েছে৷ তারপর চলতি মাসের ৩১ মে দিল্লি হাইকোর্ট সিবিআইকে আস্তানা তদন্ত চারমাসের মধ্যে সেষ করার নির্দেশ দিয়েছে৷

এখন তদন্তর শেষের দিকে আচমকা তদন্তকারী অফিসার সতীশ ডাগর ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে সরে আসতে চেয়েছেন৷ তিনি সিভিস সার্ভিস পেনশন এর ৪৮ ধারা অনুসারে সিবিআই থেকে স্বেচ্ছাবসর নিচ্ছেন৷ এই আইন অনুসারে তিন মাস আগে স্বেচ্ছাবসরের কথা জানাতে হবে৷ সেইমতো ডাগর ১৯ আগস্ট স্বেচ্ছাবসর চেয়ে চিঠি লিখেছেন৷ তবে তাঁর এই স্বেচ্ছাবসরের আর্জি একনো গ্রহণ করেনি সিবিআই৷ তিনি স্বেচ্ছাবসর নিলে আস্থানা দুর্নীতি তদন্ত ফের পিছিয়ে যাবে বলে মনে করছে সিবিআই৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here