মহানগর ডেস্ক: দেশ জুড়ে পেট্রোল ও ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির জেরে একাধিকবার বিরোধীদের তোপের মুখে পড়েছে সরকার। মেঘালয়, অসম, পশ্চিমবঙ্গের মতো বেশ কিছু রাজ্য পেট্রোল ও ডিজেলের ওপর কর ছাড় দিতে এগিয়ে এলেও সাধারণ মানুষের কষ্ট লাঘব করতে কোনও উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি কেন্দ্রকে। তবে অর্থমন্ত্রক সূত্রে খবর, খুব শীঘ্রই পেট্রোল ও ডিজেলের ওপর শুল্ক হ্রাস করতে পারে কেন্দ্র।

কেন্দ্রের যুক্তি, গত ১০মাসে আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম প্রায় দ্বিগুণ হয়ে যাওয়ায় পেট্রোল ও ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি করতে বাধ্য হয়েছে সরকার। তবে পেট্রোল ও ডিজেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির জন্য সরকারের চাপানো অতিরিক্ত কর ও শুল্ককেই প্রধান কারণ হিসেবে দায়ী করেছেন অর্থনীতিবিদরা। সাধারণ মানুষকে যে দরে পেট্রোল-ডিজেল কিনতে হয়, তার প্রায় ৬০-৭০ শতাংশের বেশি চলে যায় কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারি কর দিতেই! তবে, করোনাকালে দেশের ভেঙে পড়া অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতেই সরকার পেট্রোল ও ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি ঘটিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

তবে সূত্রের খবর, সাধারণ মানুষের কাঁধ থেকে করের বোঝা কমাতে ইতিমধ্যেই ভাবনা-চিন্তা শুরু করেছে কেন্দ্র। রাজ্য ও তেল কোম্পানিগুলির সঙ্গে আলোচনাও শুরু করা হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রকের এক উচ্চপদস্থ আধিকারিকের কথায়, ‘ তেলের দাম কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যায় তার জন্য আমরা ইতিমধ্যেই আলোচনা শুরু করেছি। মার্চের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যেই আশা করি এই বিষয়ে সমাধানসূত্র খুঁজে বের করতে পারবো।’ তবে সরকারের মনোভাব থেকে স্পষ্ট, মার্চের মাঝামাঝি সময়ে থেকেই কমতে পারে জ্বালানির দাম।

প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই এক বেসরকারি টিভি চ্যানেলের অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সিতারমন কে পেট্রোল ও ডিজেলের দাম কবে কমবে, এই ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘দাম কবে কমবে, সরকার কবে শুল্ক হ্রাস করবে এই বিষয়ে আমি বলতে পারবোনা, তবে এই বিষয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে রাজ্য গুলির শীঘ্রই কথা বলা প্রয়োজন।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here