kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: জম্মু কাশ্মীর থেকে সবরকমের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করার জন্য বারবার সুর চড়িয়ে রাষ্ট্রসংঘে ভারতের ওপর কিছুটা হলেও চাপ বাড়িয়েছেন ইমরান খান। এমতবস্থান পাকিস্তানকে আর কোনও রকমের কথা বলার সুযোগ না দিয়ে উপত্যকার ২২টি জেলা থেকে এবার কার্ফু সরিয়ে নিল ভারত সরকার। এবার এই জেলাগুলিতে কোনও রকমের বিধিনিষেধ থাকবে না বলেই জানা গিয়েছে।

সরকারি সূত্রে খবর, শনিবার সকালেই জম্মু-কাশ্মীরের ১২টি জেলা থেকে নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ৩৭০ ধারা বিলোপের দিন অর্থাৎ গত ৫ অগস্ট থেকেই এই জেলাগুলিতে ল্যান্ডলাইন ব্যবহারের পাশাপাশি মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপরও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল। যা এদিন থেকে তুলে নেওয়া হল। যদিও গত ১৫ দিন নাগাড়ে অল্প অল্প করে নিরাপত্তার কড়াকড়ি হাল্কা করা হচ্ছিল। তা সত্ত্বেও স্পর্শকাতর এলাকাগুলিতে খুব শিগগির ইন্টারনেট যোগাযোগ ফিরিয়ে দিতে চায়নি কেন্দ্র। এই ২২টি জেলাও স্পর্শকাতর হিসেবেই চিহ্নিত। সেই কারণেই কিছুটা সময় নিয়ে এই ২২ জেলা থেকে নিষেধাজ্ঞা তোলা হল। তবে এখনও কয়েকটি জেলায় কেন্দ্রের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে বলেই খবর।

সরকারি সংবাদ সংস্থা জানিয়েছে, লাদাখের জেলাগুলি থেকে অনেক আগেই সমস্তরকম নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছিল। সেখানে কার্ফু জারি করার প্রয়োজন পড়েনি। উপত্যকায় কেবল কিছু স্পর্শকাতর স্থানে কার্ফু লাগাতে হয়েছিল, যা শনিবার তুলে নেওয়া হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনের উদ্দেশে বলা হয়েছে, স্কুল-কলেজ খুলে যেন যত দ্রুত সম্ভব স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনা হয়। কেননা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সমস্ত রকম দোকানপাটও বন্ধ। ৩৭০ ধারা বিলোপের পর থেকেই কাশ্মীরের পর্যটন একপ্রকার বসে পড়েছে বলা চলে। তবে দু’মাস এখন কাটার মুখে, এই অবস্থায় ভূ-স্বর্গকে দ্রুত ছন্দে ফিরিয়ে আনাই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ কেন্দ্রের কাছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here