ডেস্ক: যৌনসঙ্গী হিসেবে কোন লিঙ্গকে বেছে নেওয়া হবে সেই সিদ্ধান্ত একেবারে ব্যক্তিগত ব্যাপার। রবিবার সর্বভারতীয় একটি সংবাদপত্রকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমনই কথা বললেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ।

সূত্রের খবর, আইনমন্ত্রীর এই মন্তব্যের ফলে বিভিন্ন রাজনৈতিক মহল থেকে এখন একটাই প্রশ্ন উঠে আসছে যে, তাহলে কেন্দ্রীয় সরকার কি সমকাম সম্পর্ক নিয়ে একটু অন্যরকমভাবে ভাবতে শুরু করেছে? সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্ট সমকামিতাকে ভারতীয় ফৌজদারি দণ্ডবিধির ৩৭৭ নং ধারায় ‘অবৈধ’ বলে ঘোষণা করেছে। ফলে আইন মোতাবেক ভারতে এখন সমকামিতা করা দণ্ডনীয় অপরাধ। তবে বিশ্ব পরিস্থিতি ও সামাজিক রদবদলের ক্ষেত্রে এই আইন সংশোধনের দাবি উঠেছে। তাতে বিজেপির মতো একটি কট্টরপন্থি দলের নেতৃত্বে চলা কেন্দ্রের এনডিএ সরকারের সায় মিলবে কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। কিন্তু আইন সংশোধনের ব্যাপারে কেন্দ্রের বাধা হয়ে দাঁড়ানোর সম্ভাবনা যে কম তার ইঙ্গিতও দিয়ে দিয়েছেন আইনমন্ত্রী। সাক্ষাৎকারে রবিশঙ্কর বপ্লেছেন যে, ‘বহু সমাজব্যবস্থাই দ্রুত বদলাচ্ছে। ৩৭৭ নম্বর ধারা সম্পর্কে কেন্দ্রের অবস্থানও তেমনই একটি দৃষ্টান্ত।’

তবে এখন একটাই প্রশ্ন যে, যেখানে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির বেঞ্চ ৩৭৭ নং ধারা রদ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেখানে আইনমন্ত্রীর এখন এই কথা বলার কি কোনও মানে রয়েছে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here