Home Featured আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে তিব্বতি তরুণদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে লাল ড্রাগনের দেশ!

আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে তিব্বতি তরুণদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে লাল ড্রাগনের দেশ!

0
আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে তিব্বতি তরুণদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে লাল ড্রাগনের দেশ!
Parul

মহানগর ডেস্ক: আবারো চিন্তা বাড়াচ্ছে লাল ড্রাগনের দেশ। লকডাউনের মধ্যে গালওয়ান সংঘর্ষের পর এক বছর কেটে গেলেও এখনো লাদাখে মুখোমুখি ভারত ও চীন সেনা। ভারতের বেশ কিছু এলাকায় এখনও রয়েছে চিনা সেনা। যেখানে গালওয়ান সংঘর্ষের পর দফায় দফায় বৈঠক করে চীনা সেনারা জানিয়েছিল যে তারা পিছিয়ে যাবে। কিন্তু এখনো গোগ্রা, দেপসাং ও হটস্প্রিং এলাকায় রয়েছে লাল ফৌজ।

এহেন পরিস্থিতিতে চীনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে ভারত। যার কারণে তিব্বতি শরণার্থীদের নিয়ে গঠন করা হচ্ছে কমান্ডো বাহিনী। ১৯৬২ সালের চীন-ভারত যুদ্ধের পর তৈরি করা হয়েছিল স্পেশল ফ্রন্টিয়ার ফোর্স। এর পর আবারও পাহাড়ি দুর্গম এলাকায় মোকাবিলার জন্য বিশেষভাবে সেই ফোর্সকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত করা হচ্ছে। এরা প্রত্যেকেই তিব্বতি যারা চীনের হাত থেকে বাঁচতে দলাই লামার পথ অনুসরণ করে ভারতে নিয়েছে আশ্রয়।

ভারত-চীন যুদ্ধের সময় প্যাংগং লেক এর ধারে শহীদ হয়েছিল তিব্বতি সেনা। সেখান থেকেই শিক্ষা নিয়েছিল চিন। তাই পাহাড়ি যুদ্ধের জন্য চীনও পিছিয়ে নেই। তিব্বতি তরুণদের প্রশিক্ষণ দেওয়া ইতিমধ্যেই শুরু করে দিয়েছে। এই বিষয় নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘গোয়েন্দারা জানিয়েছে, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর বিশেষ অভিযান চালাতে তিব্বতি তরুণদের নিয়োগ করছে লাল ড্রাগনের দেশ। নিয়মিত তাদের দেওয়া হচ্ছে করা প্রশিক্ষণ’।

অন্যদিকে, সম্প্রতি ভারতীয় সেনা সর্বাধিনায়ক জেনারেল বিপিন রাওয়াত জানিয়েছেন, লাদাখে নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর অবস্থান বদল করেছে চীন। অবস্থান বুঝেই প্রশিক্ষণের বিষয়টি বুঝতে পেরেছে তারা। তিব্বতে একাধিক সেনাঘাঁটি ও বিমান ঘাঁটি প্রশিক্ষণের জন্য সাজিয়ে তুলেছে চিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here