ডেস্ক: রাজধানীতে ফের সক্রিয়তা মমতার ফেডেরাল ফ্রন্ট নিয়ে৷
গত সপ্তাহেই আগামী লোকসভা নির্বাচনকে নিশানায় রেখে অকংগ্রেসি-অবিজেপি জোট নিয়ে এনসিপির শরদ পাওয়ার, প্রফুল প্যাটেল, সুপ্রিয়া সুলে-সহ বিজেডির অনুরাগ মহান্তি, শিবসেনার সাংসদ সঞ্জয় রাউথের সঙ্গে আলোচনা করে গিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী ৷ দেখা করেছিলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী ও আপ সুপ্রিমো অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সঙ্গেও ৷ পাশাপাশি দেখা করেছিলেন সোনিয়া গান্ধির সঙ্গে ৷ সবমিলিয়ে ফেডেরাল ফ্রন্ট নিয়ে জল্পনা তু্ঙ্গে তুলে দিল্লি ছেড়েছিলেন মমতা৷

 

সপ্তাহ কাটতে না কাটতেই মঙ্গলবার নয়াদিল্লিতে সদ্য এনডিএ ছেড়ে আসা টিডিপি সুপ্রিমো চন্দ্রবাবু নাইডুর সঙ্গে বৈঠক করলেন তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় ও ডেরেক ওব্রায়েন ৷ তিন জনের মধ্যে জোট নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলেই সূত্রের খবর ৷ প্রসঙ্গত,এনডিএ ছাড়ার পর এই প্রথম দিল্লিতে এসেছিলেন চন্দ্রবাবু৷ বিজেপি সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করতে তৃণমূল নেত্রী এখন অকংগ্রেসি,অবিজেপি জোট গড়তে কোমর বেঁধে নেমেছেন ৷ জোটে সামিল করতে চাইছেন সমস্ত অকংগ্রেসি-অবিজেপি দলকে ৷ দরজা খোলা রেখেছেন এসপির অখিলেশ যাদব ও বসপা নেত্রী মায়াবতীর জন্য৷ তবে কংগ্রেস এই জোটে সাড়া দেবে কিনা, এখনও তা পরিষ্কার নয়৷ রাজনৈতিক মহলের ধারণা, কংগ্রেস এই জোটে সামিল হবে কিনা, সে ব্যাপারে সংশয় সহজে কাটার নয়৷ কারণ তারা চাইছে কোনও জোটে না গিয়ে সরাসরি বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই চালাতে৷ আবার অন্যদিকে কংগ্রেস যদি কোনও ভাবে মমতার জোটে যোগ দেয়, তাহলে শিবসেনার মতো বেশ কিছু দল জোট থেকে সরে আসতে পারে৷ সেক্ষেত্রে নতুন এক সমস্যায় পড়বে কংগ্রেস৷ ফলে, রাজনৈতিক সমীকরণ কোন দিকে গড়াবে এখনও তা পরিষ্কার নয়৷

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here