kolkata news

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: যাত্রী পরিবহনে ‘ফাস্ট ট্যাগ’ অর্থাৎ টোল-এর বিরোধিতা করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি দিল বাস মালিকদের সংগঠন। জয়েন্ট কাউন্সিল অফ সিন্ডিকেট এ ব্যাপারে এদিন একটি সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করে। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক তপন বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, সংশ্লিষ্ট সমস্যার ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে কথা বলে মুশকিল আসানের পথ খুঁজতে আর্জি জানানো হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীকে।

তপনবাবুর অভিযোগ, ‘পশ্চিমবঙ্গে বাসের টোল গেট অতিক্রম করতে দৈনিক সাড়ে ৫০০ থেকে প্রায় ১ হাজার টাকা লাগছে। প্রতি মাসে মোট কতবার অতিক্রম করবে একটি বাস, তার আগাম আন্দাজ করে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক একাউন্টে সেই অর্থ অগ্রিম জমা রাখতে হবে। সেখান থেকে ইসিএসে টোলগেট অতিক্রমের টাকা কেটে নেওয়া হবে। কিন্তু যাত্রীদের কাছ থেকে টিকিট বিক্রির টাকা না পেলে এত টাকা কী করে জমিয়ে রাখবেন মালিকরা? দ্বিতীয়ত, ব্যাঙ্কে নির্দিষ্ট অ্যাকাউন্টে সেই টাকা না গচ্ছিত থাকলে টোল-মাশুলের দ্বিগুণ জরিমানা নেওয়ার কথা বলা হচ্ছে।’

এদিকে বাস মালিকদের অভিযোগ, ‘টোলগেটের লাইনে না দাঁড়িয়ে দ্রুত যাতে বাস বেরিয়ে যেতে পারে, সে কারণে এই বিধিতে গেটের পাশে সার্ভিস রোড রাখার কথা বলা হয়েছে। অথচ, সেই সার্ভিস রোডের পরিষেবা পাওয়া যাচ্ছে না। কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের ফলে রাজ্যের প্রায় ৪০,০০০ বাস সমস্যায় পড়েছে। আমরা শহরে যারা বাস চালাই, প্রতি বছর পথকর বাবদ চার হাজার টাকা এবং জেলায় যাঁরা বাস চালান তাঁরা বছরে আরও ৭ হাজার টাকা করে পথকর দেন। তার ওপরে টোল গেট অতিক্রম করার জন্য এ রকম হারে এত অগ্রিম টাকা কীভাবে জোর করে নেওয়া হচ্ছে?’

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে কেন্দ্রীয় সরকার জাতীয় সড়ক পরিবহন অথরিটি নিয়ন্ত্রিত টোল গেট অতিক্রমের এই কার্ড বাধ্যতামূলক করে। এরপর ২০১৯ থেকে এটি চালু হয়েছে। কিন্তু ভারতের বিভিন্ন টোল গেটের হারে কোন সামঞ্জস্য নেই। ফলে প্রতিবেশী রাজ্য ওড়িশায় যেখানে টোলগেট অতিক্রম করতে একটি বাসে যে টাকা লাগছে, সেখানে পশ্চিমবঙ্গে লাগছে অনেক বেশি।

এবিষয়ে হুঁশিয়ারী দিয়ে তপনবাবু বলেন, ‘যদি সরকার ব্যাপারটা বিবেচনা না করে তাহলে আমরা আইনি ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হব। বিষয়টি নিয়ে আমি রাজ্যের পরিবহন সচিব নারায়ন স্বরূপ নিগম এবং ন্যাশনাল হাইওয়ে অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার আধিকারিক আরপি সিংয়ের সঙ্গে কথা বলেছি। কিন্তু সমস্যার সমাধান হচ্ছে না।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here