news bengali kolkata

রাজেশ সাহা, কলকাতা: করোনা ঠেকাতে জমায়েত এড়াতে লকডাউন জারি। সংক্রামক এই ভাইরাস অতিমারির কারণ। সেই প্রভাব পড়েছে যৌনপল্লীতেও। আবারও কলকাতা গড়ল মানবিকতার নজির। যৌনকর্মীদের দুর্দিনে সাহায্যের জন্য এগিয়ে এল কলকাতা পুলিশ ও ‘রক্ষক’ সংগঠন।

লকডাউন জারি থাকায় আর পাঁচ জনের মতোই কোপ পড়েছে যৌনকর্মীদের উপার্জনেও। টালিগঞ্জ সার্কুলার রোডে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন বেশ কিছু যৌনকর্মী। উপার্জন না থাকায় অতিমারির এই দুর্দিনে দুবেলা অন্য জুটছে না তাঁদেরও। সেই খবর গিয়ে পৌঁছায় স্থানীয় চারু মার্কেট থানায়। এরপরেই বারাঙ্গনাদের যাতে খিদের জ্বালায় থাকতে না হয় তাই চারু মার্কেট থানা ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন রক্ষক- এর উদ্যোগে খাদ্যদ্রব্য বিলি করা হল এলাকায়। স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে টালিগঞ্জ সার্কুলার রোডের পুলিশকর্মী রাস্তায় ও বস্তি অঞ্চলে পুলিশকর্মীরা বিলি করলেন খাবার। পুলিশের এই প্রকল্পের নাম দেওয়া হয়েছে ‘নবদিশা’। দুর্বার সংগঠনের তালিকা অনুযায়ী যৌনকর্মীদের শিশু ও পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হল চাল, ডাল, আলু, পেঁয়াজ, তেল, নুন ও ভূষিমাল। লকডাউন চলাকালীন প্রায় ৫০০ পরিবারকে সাহায্য করা হবে বলে জানা গিয়েছে।

চারু মার্কেট থানার ওসি মৃগাঙ্ক দাস বলেন, ‘বিপদের দিনে মানুষের পাশে দাঁড়ানোই আমাদের মূল লক্ষ্য। এদিন আমরা প্রায় ৬০ টি পরিবারের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দিয়েছি। যতদিন লকডাউন চলবে ততদিন ওদের পাশে থাকবে পুলিশ।সংক্রমণ এড়াতে সমস্ত জায়গার মতো এই অঞ্চলও ফাঁকা। অর্থের সংকুলান বাড়িতে বাড়িতে। তাই এই উদ্যোগ।’ এদিন যৌনকর্মীদের মধ্যে পুলিশকর্মীরা খাদ্যদ্রব্য বিলি করেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশিকা মেনেই। নির্দিষ্ট দূরত্বে লাইন দিয়ে দাঁড় করানো হয় সকলকে। হাতে তুলে দেওয়া হয় খাদ্য সামগ্রী। সকলকে সচেতন থাকতে বারবার করে অনুরোধ করেন পুলিশকর্মীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here