ডেস্ক: চার্চিলের কাছ থেকে অভাবনীয় অক্সিজেন পেল ইস্টবেঙ্গল। চ্যাম্পিয়নশিপের লড়াই সম্ভবত গড়াল শেষ ম্যাচে। ছায়া ছবির ক্লাইম্যাক্স তৈরি করার জন্য ইস্টবেঙ্গল কৃতজ্ঞ থাকবে তাদের বাতিল ফুটবলার উইলিস প্লাজার কাছে। প্লাজার দুই এবং রেমির এক গোলের সুবাদে ঘরের মাঠে চেন্নাইকে ৩-২ গোলে হারিয়ে দিল চার্চিল ব্রাদার্স। বাঁচিয়ে রাখল আই লিগকে।

এদিনের খেলার শুরু থেকেই চ্যাম্পিয়নের মতো খেলতে থাকে চেন্নাই। তবে পাল্টা প্রতি আক্রমণে যেতে ছাড়েনি চার্চিলও। প্লাজাকে মার্ক করলেও, বেশ কয়েকবার বিপদ তৈরি করে ফেলেছিলেন তিনি। ২৯ মিনিটের মাথায় চার্চিলের জাল কাঁপিয়ে দেয় স্যান্ড্রো। গোল খেয়ে দমে না গিয়ে ম্যাচে ফিরে আসে চার্চিল। দুই উইং দিয়ে ঝড় তুলতে থাকে গোয়ার ক্লাবটি। ৩৮ মিনিটের মাথায় ইস্টবেঙ্গল বাতিল প্লাজা চেন্নাইয়ের জালে বল রাখেন। বিরতির সময় খেলার ফলাফল থাকে ১-১।

দ্বিতীয়ার্ধ্বের শুরু থেকেই মাঝমাঠের দখল নেয় চার্চিল। ম্যাচ থেকে ক্রমশ সরে যেতে থাকে চেন্নাই। অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠেন খালিদ, লিংডো, ফার্নান্ডেজরা। ৪৯ মিনিটে আবার চেন্নাই রক্ষণকে বোকা বানিয়ে দলের দ্বিতীয় গোলটি করেন রেমি। খেলায় যখন ক্রমশ জাঁকিয়ে বসছে চার্চিল, তখনই কিছুটা গতির বিরুদ্ধে দ্বিতীয় গোলটি করে চেন্নাই। ৬৯ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোলটি করেন পেদ্রো মাঞ্জি। তবুও থামানো যায়নি খালিদদের। মুহুর্তে চেন্নাইয়ের স্বপ্ন ভঙ্গ করেন সেই উইলিস প্লাজা। বাকি সময়টা প্রাণপণ চেষ্টা করেও গোলের দরজা খুলতে পারলো না চেন্নাই।

এর ফলে আই লিগে বেঁচে রইল ইস্টবেঙ্গলের আশা। শেষ ম্যাচে মিনার্ভার বিরুদ্ধে যদি হোঁচট খায় চেন্নাই এবং বাকি দুটি ম্যাচ থেকে ইস্টবেঙ্গল ছয় পয়েন্ট পেয়ে যায়, তাহলে ‘অলৌকিক’ আই লিগের সাক্ষী থাকবে দেশের ফুটবল প্রেমী মানুষ। ইস্টবেঙ্গল কৃতজ্ঞ থাকবে বহু মূল্যের ডেকাড্রন দেওয়া অবহেলিত উইলিস প্লাজার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here