ডেস্ক: মুম্বইতে খুন হওয়া সাংবাদিক জ্যোতির্ময় দে হত্যাকাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার কয়েক ঘন্টা পরেই এবার একদা দাউদ ইব্রাহিমের ডান হাত কুখ্যাত গ্যাংস্টার ছোটা রাজনের সাজা ঘোষণা করল আদালত। ছোটা রাজন সহ এই হত্যাকাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত আরও ৭ জনকে বুধবার যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের সাজা ঘোষণা করল মহারাষ্ট্রের কন্ট্রোল অফ অর্গানাইজড ক্রাইম অ্যাক্ট আদালত(MCOCA)।

সাংবাদিক জ্যোতির্ময় হত্যাকাণ্ডে ইতিমধ্যেই তিহার জেলে বন্দী রয়েছে ছোটা রাজন। তদন্ত রিপোর্ট অনুযায়ী, নিজের ভারাটে গুন্ডাদের জ্যোতির্ময় দে কে খুনের নির্দেশ দেয় ছোটা রাজন। রাজনের নির্দেশমতো ২০১১ সালের ১১ জুন দুষ্কৃতীদের গুলিতে খুন হন ৫৬ বছর বয়সী সাংবাদিক জ্যোতির্ময় দে। এই হত্যাকাণ্ডের পর পুরো ঘটনার তদন্তে নামে মুম্বই পুলিশ। যেহেতু দাউদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা রয়েছিল এই সাংবাদিকের সেহেতু তদন্তে সন্দেহের তালিকায় উঠে আসে ছোটা রাজনের নাম। এরপর ২০১৫ সালের ২৫ অক্টোবর ইন্দোনেশিয়ার বালি থেকে গ্রেপ্তার করা হয় ছোটা রাজনকে। এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত ৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয় বিভিন্ন জায়গা থেকে। যাদের মধ্যে ছিলেন সাংবাদিক জিগনা বোরা ও সাংবাদিক জোসেফ পালসেন। তবে এদিন ওই দুই সাংবাদিককে বেকসুর খালাস করে দেয় আদালত।

তদন্তে জানা গিয়েছে দাউদের সঙ্গে বিবাদের পর দাউদ ঘনিষ্ঠ সাংবাদিক জ্যোতির্ময় ছোটা রাজনের বিরুদ্ধেই কাগজে লিখতেন। আর ঠিক এই কারনেই তাঁকে খুনের ছক কষে রাজন। ক্রাইম জার্নালিস্ট জ্যোতির্ময় দের অপরাধ সংক্রান্ত দুটি বই হল ‘Khallas: An A to Z Guide to the Underworld’ এবং ‘Zero Dial: The Dangerous World of Informers’। তৃতীয় যে বইটি তিনি লিখছিলেন তা হল, ‘Chindi: Rags to Riches’ মনে করা হয় এই তৃতীয় বইটি ছোটা রাজনকে নিয়েই লেখা। আর এই কারনেই ওই কুখ্যাত গ্যাংস্টারের রোষানলে পড়েন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here