kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: আইএনএক্স মিডিয়া মামলায় সুপ্রিম কোর্টে গিয়েও স্বস্তি পেলেন না চিদম্বরম। আগাম জামিনের আর্জি খারিজ হয়ে যাওয়ার পর জন্য বুধবার সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন তিনি। সিবিআইয়ের কাছে হাজিরা দেওয়ার জন্য আরও সময় চেয়েছিলেন। বিচারপতি রামানার এজলাসে এ দিন জরুরি ভিত্তিতে মামলাটি উঠলে তিনি জানিয়ে দেন, বিষয়টি প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠিয়ে দিচ্ছেন। তিনিই মামলাটি দেখবেন। ফলে বড়সড় ধাক্কা খেলেন চিদম্বরম। এই নিয়ে এদিন প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢরার পর মুখ খুললেন রাহুল৷ তাঁর কথায়, পি চিদম্বরমের চরিত্র কলঙ্কিত করতে সিবিআই, ইডিকে ব্যবহার করছে মোদী সরকার৷ আজ টুইট করে কেন্দ্রের পদক্ষেপে সমালোচনা তো করলেনই, তার সঙ্গে সাংবাদমাধ্যমের একাংশকে ‘মেরুদণ্ডহীন’ বলে কটাক্ষ করেন রাহুল। তাঁর অভিযোগ, ইডি, সিবিআই এবং ‘মেরুদণ্ডহীন’ কিছু মিডিয়াকে হাতিয়ার করে চিদাম্বরমের চরিত্র হনন করার চেষ্টা চালাচ্ছে মোদী সরকার। ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ তোলেন তিনি।

আজ সুপ্রিম কোর্টে ক্যাভিয়েট দাখিল করে ইডি ও সিবিআই। অর্থাত্, ক্যাবিয়েট আবেদনকারীর কথা না শুনে কোনও রায় দিতে পারবে না সুপ্রিম কোর্ট। তবে, সকালেই শীর্ষ আদালতে গিয়ে ধাক্কা খেয়েছেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরম। বিচারপতি রামান্নার এজলাসে চিদাম্বরমের ‘স্পেশাল লিভ পিটিশনের’ মামলা উঠলে তা পাঠিয়ে দেওয়া হয় প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের কাছে। এর ফলে তাঁকে হেফাজতে নিতে অনেকটাই সময় পেয়ে গেল তদন্তকারীরা। জানা যাচ্ছে, সুপ্রিম কোর্টে হন্যে হয়ে পড়ে রয়েছেন চিদাম্বরমের আইনজীবী কপিল সিব্বল, সলমন খুরশিদ, অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি।

এর আগে বিভিন্ন সময় বিরোধীরা অভিযোগ করেছে, সিবিআই ও ইডির মতো সংস্থাকে ভয় দেখাতে কাজে লাগাচ্ছে মোদী সরকার৷ ফের বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় এসেছে বিজেপি৷ কিন্তু তাদের সেই প্রবণতা যে বন্ধ হয়নি, তা রাহুলের অভিযোগ থেকে পরিষ্কার৷ প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢরা আগেই চিদম্বরমের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন৷ তাঁর কথায়, আমরা পাশে আছি৷ সত্যের জন্য লড়াই চলবে৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here