kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, বিধাননগর: আরও এক চিকিৎসকের মৃত্যু হল রাজ্যে। সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে বেশ কয়েক দিন ধরে তাঁর চিকিৎসা চলছিল। ভেন্টিলেশনে দিয়েও বাঁচানো যায়নি তাকে। সোমবার রাতে তার মৃত্যু হয়। তার মৃত্যুতে গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে টুইট করে ওই চিকিৎসকের পরিবার ও তার সহযোগীদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি।

৬৯ বছর বয়সী পেশায় অর্থোপেডিক সার্জন বালিগঞ্জের বাসিন্দা ছিলেন। অসুস্থতা বোধ করায় মিন্টো পার্কের কাছে অবস্থিত বেসরকারি একটি হাসপাতালে গত ১৩ এপ্রিল ওই চিকিৎসকের চেস্টের সিটি স্ক্যান করানো হয়েছিল। সিটি স্ক্যানের রিপোর্ট দেখে চিকিৎসকদের সন্দেহ হয়। এরপর তাঁর সোয়াবের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। ১৪ এপ্রিল পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যায়। জানা যায়, কোভিড ১৯-এ আক্রান্ত হয়েছেন ওই চিকিৎসক। ১৪ এপ্রিল সল্টলেকের বেসরকারি একটি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিল ওই চিকিৎসককে। শারীরিক অবস্থার অবনতির কারণে তাঁকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়। ভেন্টিলেশনেও ওই প্রবীণ চিকিৎসকের শারীরিক অবস্থা সংকটে ছিল। উদ্বিগ্ন ছিলেন চিকিৎসকরাও। এরপর সোমবার রাত সওয়া ৯টা নাগাদ মৃত্যু হয় তাঁর।

একদিন আগেই সল্টলেকের এক বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় অন্য এক প্রবীণ চিকিৎসকেরও। কলকাতার হরিদেবপুরের বাসিন্দা ছিলেন তিনি। করোনা আক্রান্ত জানার পর প্রথমে এমআর বাঙুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। পরে সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল। সেখানেই মৃত্যু হয় তাঁর। করোনা আক্রান্ত হয়ে রাজ্যে প্রথম চিকিৎসকের মৃত্যু ছিল এটি। এদিন আবার আরও এক চিকিৎসকের মৃত্যু হল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here