মহানগর ওয়েবডেস্ক: একাধিকবার বৈঠক হওয়া সত্ত্বেও কোনও মীমাংসায় আসতে পারছে না দুই দেশ। এটি আরও বেশি করে বোঝা গেল যখন এই আশঙ্কাজনক তথ্য সামনে এল। জানা গিয়েছে, পূর্ব লাদাখ সীমান্তে নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর প্রায় ২্‌০,০০০ সেনা মোতায়েন করেছে চিন। লাদাখে নিয়ন্ত্রণ রেখার পাশাপাশি জিনজিয়াং প্রদেশেও কমপক্ষে ১০-১২ হাজার সেনার তত্পরতা লক্ষ্য করা গিয়েছে। সেই সেনাদের কাছে রয়েছে অত্যাধুনিক অস্ত্রসস্ত্র, সমরাস্ত্র বহনকারী গাড়িও।

এক সর্বভারতীয় সংবাদসংস্থা সূত্রে খবর, চিনের এই তৎপরতা দেখে বসে নেই ভারতও। আরও দুই ডিভিশন সেনা মোতায়েন করা হচ্ছে লাদাখে। আনা হয়েছে অত্যাধুনিক নানা সমরাস্ত্রও। একইসঙ্গে সীমান্ত পরিস্থিতিতে কড়া নজর রাখা হচ্ছে বলেও জানা গিয়েছে। পূর্বাভাস ছিল, ৫৯টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করে ভারত সরকার চিনকে যে কড়া বার্তা দিয়েছে , তার পর ভারতের সঙ্গে কোনও বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা কম। তা স্পষ্ট হয় বেজিংয়ের কড়া প্রতিক্রিয়ায়। তার উপর বিতর্কিত কিছু নতুন উপগ্রহ চিত্র প্রকাশ্যে আসে। তাতেই পূর্ব লাদাখের প্যাংগং লেক সংলগ্ন অঞ্চলে মান্দারিনে চিহ্নিত একটি অংশের ছবি ধরা পড়ে। এখন সেনা মোতায়েনের খবর। সব মিলিয়ে পরিস্থিতি যথেষ্ট জটিল।

অন্যদিকে জানা গিয়েছে, ভারতের অন্দরে হিংসা ছড়াতে এবং দেশের সেনাকে বিপাকে ফেলতে ইতিমধ্যেই পাক জঙ্গী সংগঠনগুলোর সঙ্গে আলোচনা করেছে চিন প্রশাসন। গিলগিট বালটিস্তানে পাকিস্তান তরফের সেনা বাড়ানোর কাজ শুরু হয়েছে। পাশাপাশি পূর্ব লাদাখেও চিনের সাহায্যকারী হিসেবে সেনা পাঠাতে শুরু করেছে পাকিস্তান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here