news bengali kolkata

মহানগর ওয়েবডেস্ক: করোনা সংকটে জর্জরিত বিশ্ব। ভয়াবহ এই মহামারীর ছড়িয়ে পড়ার জন্য অভিযোগের আঙুলটা উঠেছিল চিনের দিকে। বিশ্বের বহু দেশের পাশাপাশি রাষ্ট্রপুঞ্জের একাধিক সদস্যরাও মনে করেন করোনা মহামারীর জন্য দায়ী একমাত্র চিন। শুধু তাই নয়, চিনকে সমর্থন করার জন্য পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ উঠেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দিকে। আমেরিকার তরফে স্পষ্ট জানানো হয়েছে চিনের সঙ্গে আঁতাত রয়েছে হু এর। এরই মাঝে আরো এক ঘটনা সেই সন্দেহের দিকেই জোরালো আঙুল তুলল। সম্প্রতি চিনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের স্ত্রী পেঙ্গ লিউয়ানকে নির্বাচিত করা হল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গুডউইল অ্যাম্বাসেডর হিসেবে। এই ঘটনা রীতিমতো চাঞ্চল্য বাড়িয়ে দিয়েছে গোটা বিশ্বের।

সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, চিনের ফার্স্টলেডি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গুডউইল অ্যাম্বাসেডর হতেই পারেন। তাতে সমস্যার কিছু নেই। কিন্তু সমস্যাটা বাদে তখনই যখন কোনও স্বেচ্ছাধীন সংস্থার বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ ওঠে। এবং যার হয়ে পক্ষপাত করা হচ্ছে বলে অভিযোগ, সেই পক্ষের কেউ ওই সংস্থার শীর্ষ পদে বসেন। এক্ষেত্রেও বিষয়টা তেমনি। আশ্চর্যজনকভাবে পেঙ্গ লিউয়ানকে হু এর গুডউইল অ্যাম্বাসেডর পদে বসানো হলেও হু এর ওয়েবসাইটে দেওয়া তার পরিচয় এমন কোন উল্লেখ নেই যেখান থেকে বোঝা সম্ভব তিনি চিনের রাষ্ট্রপতির স্ত্রী কিংবা কোনও দেশের উচ্চ পদাধিকারী। লিউয়ানয়ের পরিচয় শুধুমাত্র এইটুকুই জানানো হয়েছে তিনি ভীষণ জনপ্রিয়, তার গানের গলা ভীষণ মিষ্টি এবং তিনি একজন ভালো মনের মানুষ। যদিও চিনের ফার্স্ট লেডি গান ছেড়েছেন অনেক দিন আগে। জনমানুষের এখন তার পরিচয় বলা যেতে পারে শুধুমাত্র তিনি শি জিনপিংয়ের স্ত্রী। তাহলে কিসের ভিত্তিতে তাকে ‘হু’য়ের ওই পদে নির্বাচন করা হল তার কোনও উত্তর মেলেনি।

পেঙ্গ লিউয়ান ও জি জিনপিং বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন ১৯৮৭ সালে। সেই সময়ে চীনের এক শহরের ডেপুটি মেয়র ছিলেন জিনপিং। সেই সময় সেনার পোশাকে এক কনসার্টে গান গাইতে দেখা গিয়েছিল তার স্ত্রীকে। পরে জিনপিং রাষ্ট্রপতি হলে তার স্ত্রীর সেই গান গাওয়ার ছবি মুছে ফেলা হয় সমস্ত ওয়েবসাইট থেকে। বর্তমানে তিনি চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির জেনারেল পলিটিক্যাল ডিপার্টমেন্টের চিনা সংগীত ও নাচের প্রধান পদে। পাশাপাশি চিনা মিলিটারির মেজর জেনারেল পদে রয়েছেন তিনি। এহেন পদাধিকারীকে হঠাৎ হু-এর গুডউইল অ্যাম্বাসেডর পদে বসিয়ে দেওয়ায় সন্দেহ যে বাড়ছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here