news bengali

মহানগর ওয়েবডেস্ক: করোনা ভাইরাসের বিশ্বজোড়া সংক্রমণ রোখার ওষুধ খুঁজে পাওয়া যায়নি। এরমধ্যেই মারাত্মক এক আশঙ্কার কথা শোনালেন চিনের ‘ব্যাট ওম্যান’। বাদুড় ও তার ভাইরাস নিয়ে নিরন্তর গবেষণা চালিয় যাওয়ার জন্যই এই নামে ডাকা হয় তাঁকে। শি ঝেংলি নামের ওই ভাইরাস গবেষক সম্প্রতি এক চিনা প্রচারমাধ্যমে এক সাক্ষাৎকারে বিস্ফোরক দাবি করেছেন। তিনি জানিয়েছেন যে ভাইরাস এখন আবিষ্কার হয়েছে তা হিমশৈলের চূড়া মাত্র। ভবিষ্যতেও অন্য কোনও ভাইরাসের দ্বারা এমন মহামারী ছড়ালে অবাক হওয়ার কিছুই থাকবে না। এই পরিস্থিতির সঙ্গে লড়তে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা প্রয়োজন বলে তিনি জানিয়েছেন।

করোনা সংক্রমণের মূল কেন্দ্র বিন্দুতে থাকা উহান ভাইরোলজি ইন্সটিটিউটের সহ নির্দেশ এই শি ঝেংলি ওরফে ‘ব্যাট ওম্যান’ জানিয়েছেন, ভাইরাস নিয়ে গবেষণার ক্ষেত্রে বিজ্ঞানী ও সরকারের মধ্যে স্বচ্ছতা থাকা আবশ্যিক। যখন বিজ্ঞানকে নিয়ে রাজনীতি করা হয় তখন তা আফসোসের বলেও জানান তিনি। পরবর্তী ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আগে যদি ঠিকভাবে প্রস্তুতি না নেওয়া যায় তবে তারও ফল ভুগতে হবে, সর্তক করেন ঝেংলি। বলেন, ‘মানব সভ্যতাকে আমরা যদি পরবর্তী সংক্রামক ভাইরাসের প্রকোপ থেকে বাঁচাতে চাই তবে আমাদের প্রকৃতির থেকে শিক্ষা নিয়ে জন্তু-জানোয়ারদের শরীরে থাকা ভাইরাসের গবেষণাকে আরও এগিয়ে নিতে যেতে হবে।’ তাঁর সতর্কবার্তা, ‘আমরা যদি ঠিকমতো ভাইরাসগুলিকে নিয়ে গবেষণা চালাই তবে হয়তো অন্য কোনও ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়বে।’

করোনা ভাইরাস বাদুড় নাকি অন্য কোনও প্রাণী নাকি ল্যাবোরেটারি থেকে এসেছে তা এখনও স্পষ্ট নয়। এই নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে রয়েছে। যদি তর্কের খাতিরে ধরেই নেওয়া হয় যে এই ভাইরাস বাদুড় থেকে ছড়িয়েছে। সে ক্ষেত্রে বন্যপ্রাণ থেকে ভাইরাস সংক্রমণের এই ধারা যদি মানুষ ধরতে না পারে, তাহলে আরও বিপদ অপেক্ষা করছে ভবিষ্যতে। এই সংক্রমণ কোথায় গিয়ে থামবে তাও কেউ বলতে পারবে না বলেই জানিয়েছেন চিনের ‘বাদুড় মহিলা’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here