national news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: লাদাখে তাদের আগ্রাসন নীতি ব্যর্থ হয়েছে। বীর বিক্রম ভারতীয় সেনার পাল্টা জবাবে পিছু হটেছে চিনের লাল ফৌজ। তবে মার খেয়েও শিক্ষা ফেরেনি চিনের। তারই নমুনা এদিন দেখা গেল অরুণাচল প্রদেশ। লাদাখের পর এবার অরুণাচল প্রদেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় ব্যাপকভাবে নজরে এসেছে চিনের সেনাবাহিনীর গতিবিধি। অরুণাচলের সীমান্ত সংলগ্ন চারটি জায়গায় সেনা মোতায়েন করেছে তারা। এই ঘটনাকে মোটেও ভালো চোখে দেখছে না ভারত সরকার। কোনরকম আগ্রাসন মানসিকতা থামিয়ে দিতে একেবারে তৈরি হয়েই রয়েছে ভারতীয় বাহিনী।

সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, অরুণাচল প্রদেশ ভারত সীমান্ত থেকে ২০ কিলোমিটারের মধ্যে চিনা সেনার গতিবিধি নজরে এসেছে ভারতের। অরুণাচলের আসাফিলা তুতিং অ্যাক্সিস, চাং জে, ফিশটেল, সেক্টর ২-এ ব্যাপকভাবে ধরা পড়েছে লালফৌজের গতিবিধি। ভারতীয় ভূখণ্ড থেকে কুড়ি কিলোমিটারের মধ্যেই অবস্থিত এই সমস্ত এলাকায় রাস্তা তৈরি করেছে চিন। সেখানে রীতিমতো টহল দেওয়া শুরু করেছে তারা। বিশেষজ্ঞদের অনুমান লাদাখে ধাক্কা খেয়ে এখন অরুণাচলকে টার্গেট করেছে চিন। প্রচেষ্টা চলছে সীমান্ত সংলগ্ন উচু জায়গা গুলি নিজের অধিকারে নেওয়ার, যাতে যুদ্ধের সময় উপস্থিত হলে বাড়তি সুবিধা অবলম্বন করতে পারে। যদিও বিষধর সাপ চীন সম্পর্কে যথেষ্ট সচেতন ভারত কোনওরকম আগ্রাসন নীতি মোকাবিলার জন্য ভারতীয় সেনা যে পুরোদমে প্রস্তুত সে কথা আগেই জানিয়ে দিয়েছে সরকার।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার সংসদ অধিবেশনে চিন ইস্যুতে সরকারের বক্তব্য রেখেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। এদিন তিনি জানান, চিনের সঙ্গে ভারতের সংঘাত এখনো পুরোপুরি মিটেনি। বরং চিন দ্বিপাক্ষিক চুক্তি লঙ্ঘন করেছে বলে অভিযোগ তোলেন তিনি। চিনের ওপর পুরোদমে নজর রাখা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। কোনওরকম আগ্রাসন নীতির কড়া জবাব দেওয়ার হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন রাজনাথ সিং।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here