national news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: গালোয়ানে ভারতীয় ও চিনা সেনার মধ্যে সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় জওয়ানের পাশাপাশি বেশ কিছুজন চিনা সেনাও প্রাণ হারিয়েছেন, সোমবার এই কথা কার্যত স্বীকার করে নিল চিনের সরকারি সংবাদমাধ্যম। যদিও সঠিক কত জন সেনা মারা গিয়েছেন, তা জানানো হয়নি।

সোমবার একাধিক ট্যুইটে গ্লোবাল টাইমসের পক্ষ থেকে জানানো হয়, চিনা সরকার যদি গালোয়ানে নিহত সেনার সংখ্যা প্রকাশ করে তাহলে ভারত সরকার চাপে পড়ে যাবে। ভারতীয় জনগণকে শান্ত রাখার জন্য সেদেশের সরকার ইচ্ছে করে বেশি চিনা সেনা নিহত হয়েছে বলে প্রচার করছে। ‘ভারতীয়দের মধ্যে জাতীয়তবাদ বজায় রাখতে ইচ্ছা করে ভারত সরকার নিহত চিনা সেনার সংখ্যা বেশি বলছে’, দাবি গ্লোবাল টাইমসের।

‘চিনা সরকার এখন পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হোক, এটা চায় না। সেই কারণেই তারা গালোয়ান সংঘর্ষে নিহত চিনা সৈনিকদের সংখ্যা প্রকাশ করছে না। চিন যদি সেই সংখ্যা প্রকাশ করে, আর তা নিহত ২০ জন ভারতীয় জওয়ানদের থেকে কম হয়, তাহলে ভারত সরকার ফের চাপে পড়ে যাবে’, ট্যুইট করে গ্লোবাল টাইমস।

প্রসঙ্গত, লাদাখের গালোয়ান ভ্যালিতে গত সপ্তাহের সোমবার রাতে হঠাৎ করেই রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে দুই দেশের সেনা। প্রাথমিক ভাবে জানা যায় ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ভারতের এক সেনা অফিসার ও দুই জওয়ান।

কিন্তু মঙ্গলবার রাতের বেলা জানা যায়, শুধু দুই জওয়ান ও এক কর্নেল নন, চিন ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর সংঘর্ষে ভারতীয় সেনার কমপক্ষে ২০ জন জওয়ান শহিদ হয়েছেন। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে এই খবরের স্বীকার করে নেওয়া হয়। শুধু তাই নয়, এই সংঘর্ষে চীনের ৪৩ জন সেনা মারা গিয়েছে বলেও জানা যায় সূত্র মারফত। ভারতীয় সেনার প্রাক্তন প্রধান তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ভিকে সিং গতকাল জানান ওই সংঘর্ষে ৪০ চিনা সেনা মারা গিয়েছেন।

একাধিক সংবাদসংস্থা সূত্রে খবর, সংঘর্ষে বন্দুকের ব্যবহার না হলেও ভারতীয় সেনারা খালি হাতেই চিনা সেনার সম্মুখীন হন। কিন্তু চিনা ফৌজ রড, কাঁটাতার জড়ানো লাঠি দিয়ে হামলা করে। যদিও ভারতীয় জওয়ানরা খালি হাতেই ৪৩ চিনা সেনাকে ঘায়েল (মৃত ও আহত) করে। চিনের তরফে বলা হয়, ভারতীয় সেনা তাদের সীমান্তে ঢুকে পড়ে। ভারত সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here