নিজস্ব প্রতিবেদক,পুরুলিয়া: পুরুলিয়ায়র ছৌ নৃত্য একটি লোকসংস্কৃতি। সেই ছৌ নৃত্যের মাধ্যমেই এবার সমাজ সচেতনতার বার্তা দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে পুরুলিয়ার স্কুল পড়ুয়ারা। ছৌ নাচের মাধ্যেমে ”নেশা মুক্ত স্বচ্ছ ভারত” গড়ার বার্তা দিতে রাজধানী পাড়ি দিচ্ছে পুরুলিয়ার স্কুল পড়ুয়ারা। ঝালদার কুশি উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম ও নবম শ্রেণীর ছ’জনের ছৌ দল রাজ্যে প্রথম হওয়ার পর আজ দিল্লি পাড়ি দিচ্ছে। আগামী ৪-৭ ডিসেম্বর দিল্লীতে আয়োজিত স্টেট লেভেল লোকনৃত্য প্রতিযোগীতায় ছৌ নাচে অংশগ্রহণ করবে এই খুদে পড়ুয়ারা। পুরুলিয়ার মত একটি প্রত্যন্ত গ্রামের কুশি স্কুলের ছৌ দোল দিল্লী পাড়ি দেওয়ায় খুশি জেলার শিক্ষা মহল।

এই উদ্যোগের মাধ্যমেই পুরুলিয়ার ছৌ সংস্কৃতি রাজ্যের গন্ডি পেরিয়ে বিশ্বের দরবারে জায়গা করে নিচ্ছে। পুরুলিয়ার সাথে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে ছৌ নাচের নাম। এই ছৌ নাচে পিছিয়ে নেই পুরুলিয়ার স্কুলের ছাত্র রাও। তার প্রমাণ ঝালদা ১নং ব্লকের প্রত্যন্ত এলাকার কুশি হাই স্কুল। এস্টেট কাউন্সিল অফ এডুকেশন রিসার্চ এন্ড ট্রেনিং আয়জিত এস্টেট লেভেল ফল্ক ডান্স কম্পিটিশনে প্রথম হয় ঝালদার কুশি হাই স্কুল। এই স্কুলের ছৌ নাচের থিম ছিল ”নেশা মুক্ত স্বচ্ছ ভারত”। রাজ্যে প্রথম হওয়ার পর আজ ২ ডিসেম্বর দিল্লি পাড়ি দিলো ঝালদার ছয় স্কুল পড়ুয়া। ওই স্কুলের ভার প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক অলোক কুমার সামন্ত জানান, ‘প্রথমে ঝালদা অবর বিদ্যালয় পরিদর্শক আমাকে এই প্রতিযোগিতার বিষয়ে জানান। সেই সময় আমি প্রথমে না বললেও তিনি এক প্রকার জোর করেই আমাকে অংশ গ্রহণ করতে বলে। তার জন্যে ৪-৫ মাস ধরে অক্লান্ত পরিশ্রম করে ”নেশা মুক্ত স্বচ্ছ ভারতে”র উপর থিম তৈরি করে প্রশিক্ষণ নেয় ছাত্ররা। এরপরই ছয় ছাত্রীর দল রাজ্য স্তরে এই প্রতিযোগীতায় প্রথম হয়ে এবার দিল্লী যাচ্ছে তারা।’

পুরুলিয়ার ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক জানান ওই প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণকারীরা প্রত্যেকেই অষ্টম ও নবম শ্রেণীর ছাত্র। তাঁর বিশ্বাস দিল্লিতেও তারা প্রথম হবে। এই ছয় জন ছাত্রকে প্রশিক্ষণ দিয়েছে কুশি গ্রামের ছৌ শিল্পী মোহন মাহাতো। তিনি জানান, এই ছয় খুদে পড়ুয়াকে গর্বিত প্রশিক্ষণ দিয়ে তিনিও যথেষ্ট গর্বিত। কারণ এত অল্প বয়সের ছাত্ররা এত পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে এই নৃত্যকে আয়ত্ব করবে তিনি ভাবতে পারেননি। অন্যদিকে একই কথা বলেছেন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আশীষ কুমার ব্যানার্জী,শিক্ষক চিন্ময় ঘোষ সহ আরো অনেকে। পাশাপাশি ছৌ শিল্পী তথা ছাত্র সন্দীপ কুইরি জানায় আমরা প্রচুর পরিশ্রম করেছি। দিল্লীতেও প্রথম হয়েও স্কুল তথা রাজ্যের নাম যাতে উজ্জ্বল করতে পারি, সেই চেষ্টাই করবে ছাত্ররা। আমরাও তাদের পাশে আছি, যতটা সম্ভব তাদের সাহস যুগিয়ে যাব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here