Parul

নিজস্ব প্রতিনিধি:  আড়াই বছর আগে শুভেন্দুর দেহরক্ষী শুভব্রত চক্রবর্তী খুন হয়েছিলেন। সেই খুনের তদন্তভার গ্রহণ করল সিআইডি। সোমবারই সিআইডি আধিকারিকদের শুভব্রত চক্রবর্তীর বাড়ি যাওয়ার কথা রয়েছে। সিআইডি তদন্তের স্বার্থে শুভেন্দু অধিকারীকে ডাকতে পারে।

ads

শুভব্রত চক্রবর্তীর মৃত্যুর আড়াই বছর পেরিয়ে যাওয়ার পরে তাঁর স্ত্রী সুপর্ণা কাঞ্জিলাল চক্রবর্তী অভিযোগ দায়ের করেন। স্ত্রী বলেন, সেদিন স্কুলে থাকার সময় শুনি স্বামী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। উদভ্রান্তের মতো ছুটে গিয়েছিলেন কাঁথি হাসপাতালে। সেখানে দেখেন স্বামী রক্তে ভেসে যাচ্ছে। চিকিৎসকরা কলকাতায় নিয়ে যেতে বলেন। কিন্তু অ্যাম্বুল্যান্স আসতে দেরি করে। ততক্ষণে তাঁর মৃত্যু হয়। তৎকালীন পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর দেহরক্ষী শুভব্রত চক্রবর্তী। স্ত্রীর অভিযোগ, সেদিন পরিকল্পনা করে দেরিতে এসেছিল অ্যাম্বুল্যান্স। সেই কারণেই তাঁর স্বামীর মৃত্যু হয়েছে। এই অভিযোগের ভিত্তিতে সিআইডি বুধবার তদন্তভার গ্রহণ করেন।

কিন্তু স্বামীর খুনের এতদিন পর অভিযোগ কেন?   এই প্রশ্নের উত্তরে সুপর্ণা দেবী বলেন, শুভেন্দু অধিকারীর ভয়ে এতদিন তিনি কিছু বলতে পারেননি। তবে পরিস্থিতি বদলে যেতেই তিনি অভিযোগ দায়ের করেন। পাল্টা শুভেন্দু অধিকারীর দাবি,  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামে হেরে গিয়েছেন। সেই কারণেই এই ধরনের কাজ করছেন। তিনি দাবি করেছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে জেলের হাওয়া খাওয়াতে চাইছেন। যদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এত ইচ্ছা হয়, সেক্ষেত্রে তিনি জেলে যেতে পারেন। এত আয়োজনের দরকার নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here