নিজস্ব প্রতিবেদক, পুরুলিয়া: পঞ্চায়েত ভোট শেষ হলেও, বন্ধ হল না রক্ত রাজনীতির হোলি খেলা। গত কয়েকদিন আগেই পুরুলিয়ার ত্রিলোচন মাহাতোর মৃত্যুকে ঘিরে উত্তপ্ত হয়েছে রাজনৈতিক তরজা। ইতিমধ্যেই ঘটনার তদন্তে নেমেছে সিআইডি। এরই মাঝে ফের পুরুলিয়াতে মৃত্যু হয়েছে দুলাল কুমার নামে এক বিজেপি কর্মীর। পরিস্থিতি যে খারাপ দিকে যাচ্ছে, তা বুঝতে পেরেই এবার এই খুনের ঘটনার কিনারা করতেও তদন্তে নামল সিআইডি।

এদিকে, পরপর বিজেপি কর্মী খুনে শাসকদলের দিকেই আঙুল তুলেছে রাজ্য বিজেপি। নতুন করে এই খুনকে মাধ্যম করে বিজেপি যে শাসক দলের উপর আক্রমণ শানাবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। দুলাল কুমারের মৃত্যুর খবর পাওয়ার পরই বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ মুকুল রায়কে ফোন করে পুরুলিয়ার বলরামপুরে আসতে বলেন। সভাপতির নির্দেশ মেলার পর সকালেই দিল্লী থেকে রাঁচি গামী বিমান ধরেন মুকুল রায়। জানা গিয়েছে, রাঁচি থেকে সড়ক পথে বাগমুন্ডি হয়ে বলরামপুর থানার ডাভা গ্রামে দুলাল কুমারের বাড়িতে যাবেন তিনি। এরপর ওখান থেকে যাবেন কয়েকদিন আগেই খুন হওয়া অপর বিজেপি কর্মী ত্রিলোচন মাহাতোর বাড়ি।

উল্লেখ্য, শনিবার ভোরে পুরুলিয়ার বলরামপুর থানা এলাকার ডাভা গ্রামের হাইটেনশন লাইনের পোলে ঝুলতে দেখা যায় দুলাল কুমার (৩২) নামে এক বিজেপি কর্মীর মৃতদেহ। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, গতকাল বিজেপির থানা ঘেরাও কর্মসূচিতে যোগ দিয়েছিল দুলাল। সেখান থেকে বাড়ি ফেরার পর বাবা মহাদেব কুমারকে বলরামপুরের দোকানে পৌঁছাতে যান দুলাল। বাড়ি ফেরার উদ্দেশ্যে দোকান থেকে বেরিয়ে এলেও বাড়ি এসে পৌঁছাননি দুলাল। পরপর দুজন বিজেপি কর্মী খুন হওয়ার পর ব্যাপক উত্তেজনা শুরু হয়েছে পুরুলিয়ার ওই এলাকায়। পুলিশ ওই এলাকায় দেহ উদ্ধার করতে গেলে পুলিশের সঙ্গে ব্যাপক খণ্ডযুদ্ধ বাধে এলাকাবাসীর। ঘটনায় কয়েকজন পুলিশকর্মী আহত হয়েছেন বলেও জানা গিয়েছে। পরিস্থিতি আয়ত্তে আনতে গ্রামে টহল দিচ্ছে বিশাল পুলিশ বাহিনী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here