ডেস্ক: ফিরে আসতে পারে ২০১৩ সালের সেই ছবি৷ যেখানে পঞ্চায়েত ভোট নিয়ে তুমুল সংঘাত তৈরি হয়েছিল রাজ্য সরকার ও নির্বাচন কমিশনের মধ্যে৷ তৎকালীন রাজ্য নির্বাচন কমিশনার মীরা পাণ্ডে আদালতে গিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে কড়া নেড়েছিলেন৷ আধা সামরিক বাহিনী দিয়ে ভোট করার পক্ষে সওয়াল করেছিলেন মীরা পাণ্ডে৷ নাজার ছিল রাজ্য সরকার৷ অনেক মাললা-মোকদ্দমার পর আইনি জয় পেয়েছিল কমিশনের৷ এবার কী সেই ছবি দেখা যেতে পারে৷ জল যেদিকে গড়াচ্ছে, তাতে সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলে অবাক হওয়ার কিছু নেই৷ গতবার পঞ্চায়েত ভোট পিছিয়ে হয়েছিল জুলাইতে৷ এবারও সেরকম হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে৷ অন্তত এদিন রাজ্য ও কমিশনের মধ্যে সংঘাত দেখে তেমনটাই মনে করছেন অনেকে৷ মীরা পাণ্ডের রাস্তাতেই হাঁটতে পারেন অমরেন্দ্র কুমার সিং, এমনটাও শোনা যাচ্ছে৷

হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চের নির্দেশে নতুন করে মনোনয়নের দিন ধার্য হওয়ার পর, স্কুনিটি পর্যন্ত হয়ে গিয়েছে, কিন্তু নতুন নির্ঘন্ট নিয়ে মনানৈক্যে পৌঁছতে পারছে না রাজ্য ও কমিশন৷ তবে আর বিলম্ব নয়, ভোটের সূচি নিয়ে নির্বাচন কমিশনকে চরম সময়সীমা বেঁধে দিল রাজ্য সরকার৷ তার মধ্যে কমিশন যদি পঞ্চায়েত ভোটের নতুন সূচি ঘোষণা না করে, তাহলে রাজ্য সরকার একতরফা বিজ্ঞপ্তি জারি করবে৷ কারণ, রাজ্য সরকার সূচি নিয়ে তাদের সিদ্ধান্তে অনড়৷

নবান্ন সূত্রে খবর, আলোচনায় বসার ক্ষেত্রে কমিশনের ডাকের জন্য বৃহস্পতিবার দুপুর ৩টে পর্যন্ত অপেক্ষা করবে রাজ্য সরকার৷ যদি কমিশন বৈঠকে না বসে, তাহলে রাজ্য তাদের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেবে কমিশনকে৷ ফ্যাক্স অথবা মেইল করে আনুষ্ঠানিকভাবে রাজ্যের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হবে কমিশনকে৷ এবং একতরফা ভাবে পঞ্চায়েত ভোটের বিজ্ঞপ্তি জারি করবে রাজ্য সরকার৷

উল্লেখ্য, রাজ্য সরকার চাইছে ১৪ ও ১৬ মে ভোট হোক এবং গণনা হোক ১৯ মে৷ তাহলে রমজান মাসে কোনও সমস্যা হবে না৷ প্রয়োজনে এক দফাতেও ভোট হলে আপত্তি নেই রাজ্য সরকারের৷ অন্যদিকে, কমিশন চাইছে আগের মতোই তিন দফায় ভোট৷ তাহলে একটা দফা রমজানের মধ্যে পড়তে পারে৷ পাশাপাশি, নিরাপত্তা ইস্যুতে রাজ্যের সশস্ত্র পুলিশের উপর বিশেষ ভরসা রাখতে পারছে না কমিশন৷ তারা চাইছে সিআরপিএফ দিয়ে ভোট হোক৷ যদিও আধা সেনার বিষয়টি নিয়ে প্রকাশ্যে কোনও মন্তব্য করেনি কমিশন৷

শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, একটা রফা সূত্রের সন্ধান মিলেছে বলে জানা যাচ্ছে৷ কমিশনের সঙ্গে ফোনে আলোচনা হয়েছে রাজ্যের প্রতিনিধির৷ অর কোনও বৈঠচক হওয়ার সম্ভাবনা নেই৷ রাজ্য তাদের বক্তব্য লিখিত আকারে পাঠাচ্ছে কমিশনকে৷ খুব সম্ভবত বৃহস্পতিবার বিকেলের মধ্যেই বিজ্ঞপ্তি জারি করবে দু’পক্ষ৷ তার আগে নটুন নির্ঘন্ট ঘোষণা করতে পারে কমিশন৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here